লিভার জন্ডিসের লক্ষণ কি। লিভার জন্ডিস হলে কি করনীয়

লিভার জন্ডিসের চিকিৎসা,লিভার জন্ডিস হলে কি করনীয়,লিভার জন্ডিসের লক্ষণ কি। লিভার জন্ডিস হলে কি করনীয়,লিভার জন্ডিস কি?

লিভার জন্ডিসের লক্ষণ কি

জন্ডিস হল ত্বকের হলুদ, চোখের সাদা অংশ এবং শরীরের টিস্যু। এটি ঘটে যখন রক্তে খুব বেশি বিলিরুবিন থাকে। বিলিরুবিন একটি হলুদ রঙ্গক যা লোহিত রক্তকণিকা ভেঙে গেলে উত্পাদিত হয়। সাধারণত, যকৃত পিত্তথলিতে বিলিরুবিন থেকে মুক্তি পায়। কিন্তু লিভার যদি সঠিকভাবে কাজ না করে তবে বিলিরুবিন রক্তে তৈরি হতে পারে এবং জন্ডিসের কারণ হতে পারে। জন্ডিস যকৃতের রোগ, ক্যান্সার, সংক্রমণ এবং পিত্তনালীর বাধা সহ বিভিন্ন অবস্থার লক্ষণ হতে পারে। জন্ডিস নিজেই কোনও রোগ নয়, তবে এটি একটি গুরুতর অন্তর্নিহিত অবস্থার লক্ষণ হতে পারে।

লিভার জন্ডিস কি?

লিভার জন্ডিস এমন একটি অবস্থা যা রক্তে বিলিরুবিনের আধিক্য থাকলে ঘটে। বিলিরুবিন হল একটি হলুদ রঙ্গক যা লিভার দ্বারা উত্পাদিত হয়। যখন রক্তে এই রঙ্গকটির পরিমাণ বেশি থাকে, তখন এটি ত্বক এবং চোখের সাদা অংশ হলুদ দেখাতে পারে।

জন্ডিসের সবচেয়ে সাধারণ লক্ষণ হল ত্বক হলুদ হয়ে যাওয়া এবং চোখের সাদা অংশ। এটি রক্ত ​​প্রবাহে অতিরিক্ত বিলিরুবিনের কারণে ঘটে। জন্ডিসের অন্যান্য লক্ষণগুলির মধ্যে ক্লান্তি, বমি বমি ভাব, জ্বর, গাঢ় প্রস্রাব এবং হালকা রঙের মল অন্তর্ভুক্ত থাকতে পারে।

আরো পড়ুন :দ্রুত ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণ করার উপায়।
উপসর্গগুলি চিনতে এবং উপযুক্ত চিকিত্সা চাইতে সক্ষম হওয়ার জন্য লিভার জন্ডিস কী তা বোঝা গুরুত্বপূর্ণ।

জন্ডিস সাধারণত নিম্নলিখিত লক্ষণগুলির কারণ হয়:

  • - ত্বক হলুদ হয়ে যাওয়া
  • -চোখের সাদা অংশ হলুদ হয়ে যাওয়া
  • - গাঢ় প্রস্রাব
  • - ফ্যাকাশে মল
  • -চুলকানি
  • - ক্লান্তি
  • -ক্ষুধামান্দ্য

আপনি যদি এই উপসর্গগুলির মধ্যে কোনটি অনুভব করেন তবে নির্ণয়ের জন্য আপনার ডাক্তারের সাথে দেখা করা গুরুত্বপূর্ণ। লিভার জন্ডিস একটি গুরুতর অন্তর্নিহিত অবস্থার লক্ষণ হতে পারে এবং উপেক্ষা করা উচিত নয়।

লিভার জন্ডিস কেন হয়

লিভার জন্ডিসের অনেকগুলি সম্ভাব্য কারণ রয়েছে। আরও কিছু সাধারণ কারণের মধ্যে রয়েছে:

  • হেপাটাইটিস এ - এটি একটি ভাইরাল সংক্রমণ যা লিভারকে আক্রমণ করে এবং প্রদাহ এবং ক্ষতির কারণ হতে পারে। • হেপাটাইটিস বি - এটি একটি ভাইরাল সংক্রমণ যা লিভারকে আক্রমণ করে এবং প্রদাহ এবং ক্ষতির কারণ হতে পারে। • হেপাটাইটিস সি - এটি একটি ভাইরাল সংক্রমণ যা লিভারকে আক্রমণ করে এবং প্রদাহ এবং ক্ষতির কারণ হতে পারে। • সিরোসিস - এটি এমন একটি অবস্থা যেখানে দীর্ঘস্থায়ী আঘাত বা রোগের কারণে লিভার ক্ষতবিক্ষত হয়ে যায়। এটি দুর্বল ফাংশন এবং শেষ পর্যন্ত ব্যর্থতার কারণ হতে পারে। • ফ্যাটি লিভার ডিজিজ - এটি এমন একটি অবস্থা যেখানে লিভারের কোষগুলিতে চর্বি জমা হয়। এটি প্রদাহ এবং ক্ষতির কারণ হতে পারে। • অ্যালকোহলিজম - অ্যালকোহল অপব্যবহারের ফলে ফ্যাটি লিভার ডিজিজ, সিরোসিস এবং হেপাটাইটিস হতে পারে। এই সমস্ত শর্তগুলি লিভারের ক্ষতি করতে পারে এবং জন্ডিসের দিকে নিয়ে যেতে পারে।

লিভার জন্ডিসের লক্ষণ 

পেশী ব্যথা: লিভার জন্ইিসে আ ক্ষেত্ع (পেট) ব্যথা প্রধান উপসর্গ। এটি একটি ধ্রুবক ব্যথা যা সময়ের সাথে সাথে আরও খারাপ হয়ে যায়। ব্যথা পেটের উপরের ডান অংশে অনুভূত হতে পারে, কেবল পাঁজরের নীচে। বমি বমি ভাব এবং বমি বমি ভাব: আপনি খাওয়ার পরপরই বমি বমি ভাব এবং বমি অনুভব করতে পারেন। এর কারণ হল আপনার লিভার সঠিকভাবে খাবার প্রক্রিয়া করতে পারে না। ক্ষুধা হ্রাস: আপনি আপনার ক্ষুধা হারাতে পারেন বা শুধুমাত্র খাদ্য একটি ছোট পরিমাণ খাওয়ার পরে পূর্ণ বোধ করতে পারেন। এর কারণ হল আপনার লিভার সঠিকভাবে খাবার থেকে শক্তি সঞ্চয় করতে সক্ষম হয় না।

আরো পড়ুন : ডায়াবেটিসের জন্য সেরা ৫টি ব্যায়াম
ওজন হ্রাস: আপনি ওজন হারাতে পারেন যদিও আপনি স্বাভাবিক হিসাবে একই পরিমাণ খাবার খাচ্ছেন। এর কারণ হল আপনার শরীর খাদ্য থেকে শক্তি সঠিকভাবে ব্যবহার করতে সক্ষম হয় না।

ক্লান্তি: আপনি সব সময় ক্লান্ত বোধ করতে পারেন বা কিছু করার জন্য কোন শক্তি আছে। এটি কারণ আপনার লিভার আপনার রক্ত থেকে বিষাক্ত পদার্থগুলি সঠিকভাবে অপসারণ করতে সক্ষম হয় না।

লিভার জন্ডিসের কারণ

লিভার জন্ডিস বিভিন্ন অবস্থার কারণে হতে পারে। এর মধ্যে রয়েছে লিভারের রোগ, নির্দিষ্ট ওষুধ, সংক্রমণ, এমনকি অতিরিক্ত মদ্যপান। জন্ডিসের সবচেয়ে সাধারণ কারণ হল লিভারের রোগ। যকৃত ক্ষতিগ্রস্ত হলে, এটি বিলিরুবিনকে দক্ষতার সাথে প্রক্রিয়া করতে অক্ষম হয় এবং এটি রক্ত ​​প্রবাহে জমা হতে পারে, যার ফলে জন্ডিস হয়। যকৃতের রোগ যা জন্ডিস হতে পারে তার মধ্যে রয়েছে হেপাটাইটিস, সিরোসিস এবং ক্যান্সার। ওষুধের কারণেও জন্ডিস হতে পারে। কিছু ওষুধ, যেমন অ্যাসিটামিনোফেন এবং প্যারাসিটামল, যকৃতের ক্ষতি করতে পারে এবং জন্ডিস হতে পারে। এছাড়াও, কিছু অ্যান্টিবায়োটিক, অ্যান্টিকনভালসেন্ট এবং কেমোথেরাপির ওষুধও জন্ডিসের কারণ হতে পারে।

আরো পড়ুন : বিদেশি মোবাইল রেজিস্ট্রেশন করার নিয়ম
সংক্রমণের কারণেও জন্ডিস হতে পারে। ভাইরাল সংক্রমণ, যেমন হেপাটাইটিস এবং এইচআইভি, জন্ডিস হতে পারে। এছাড়া কিছু পরজীবী এবং ব্যাকটেরিয়াও জন্ডিসের কারণ হতে পারে। অবশেষে, অতিরিক্ত অ্যালকোহল সেবনের ফলেও জন্ডিস হতে পারে। অ্যালকোহল লিভারের ক্ষতি করতে পারে এবং রক্তের প্রবাহে বিলিরুবিন তৈরি করতে পারে।

লিভার জন্ডিসের সম্ভাব্য জটিলতা

যদি চিকিত্সা না করা হয়, জন্ডিস গুরুতর জটিলতা হতে পারে। এই জটিলতার মধ্যে রয়েছে অ্যানিমিয়া, রক্তে টক্সিনের উচ্চ মাত্রা, দুর্বল পুষ্টি, এমনকি লিভারের ব্যর্থতা।

আপনি যদি জন্ডিসের কোনো উপসর্গ অনুভব করেন তবে আপনার ডাক্তারের সাথে কথা বলা গুরুত্বপূর্ণ, কারণ প্রাথমিক চিকিত্সা এই জটিলতাগুলি প্রতিরোধ করতে সাহায্য করতে পারে।

লিভার জন্ডিস হলে কি করনীয়

জন্ডিস হওয়ার ঝুঁকি কমাতে আপনি কিছু জিনিস করতে পারেন। প্রথমত, একটি স্বাস্থ্যকর জীবনধারা বজায় রাখা গুরুত্বপূর্ণ। স্বাস্থ্যকর খাবার খাওয়া, নিয়মিত ব্যায়াম করা এবং ধূমপান না করা আপনার লিভারকে সুস্থ রাখতে এবং আপনার জন্ডিস হওয়ার ঝুঁকি কমাতে সাহায্য করতে পারে। উপরন্তু, অতিরিক্ত অ্যালকোহল সেবন এড়াতে গুরুত্বপূর্ণ। অত্যধিক অ্যালকোহল পান করা আপনার লিভারের ক্ষতি করতে পারে এবং জন্ডিস হতে পারে। আপনি যদি অ্যালকোহল পান করেন তবে তা পরিমিতভাবে করা গুরুত্বপূর্ণ।

All Bangla News  👉 Tune Status 👈
অবশেষে, হেপাটাইটিস A, B এবং C এর বিরুদ্ধে টিকা নেওয়া গুরুত্বপূর্ণ। এই ভাইরাসগুলি জন্ডিসের কারণ হতে পারে, তাই নিজেকে রক্ষা করার জন্য টিকা নেওয়া গুরুত্বপূর্ণ।

লিভার জন্ডিসের ঝুঁকি কমাতে জীবনযাত্রার পরিবর্তন

লিভার জন্ডিস হল রক্তে বিলিরুবিনের আধিক্যের কারণে ত্বক এবং চোখের সাদা হলুদ হয়ে যাওয়া। বিলিরুবিন হল একটি হলুদ রঙ্গক যা লাল রক্তকণিকা ভেঙে গেলে তৈরি হয়। লিভার সাধারণত রক্ত থেকে বিলিরুবিন ফিল্টার করে এবং পিত্তে নির্গত করে। যাইহোক, যদি লিভার ক্ষতিগ্রস্ত হয় বা সঠিকভাবে কাজ না করে, তবে বিলিরুবিন রক্তে জমা হতে পারে, যার ফলে জন্ডিস হতে পারে। অনেকগুলি জীবনধারার পরিবর্তন রয়েছে যা আপনার লিভার জন্ডিস হওয়ার ঝুঁকি কমাতে সাহায্য করতে পারে: আপনার অ্যালকোহল গ্রহণ সীমিত করুন: অ্যালকোহল সেবন লিভারের ক্ষতির একটি প্রধান কারণ এবং লিভার জন্ডিসের বিকাশে অবদান রাখতে পারে। আপনি যদি অ্যালকোহল পান করেন তবে তা পরিমিতভাবে করুন। একটি স্বাস্থ্যকর ওজন বজায় রাখা: স্থূলতা লিভারের ক্ষতি এবং যকৃতের জন্ডিস হওয়ার ঝুঁকির কারণ। ডায়েট এবং ব্যায়ামের মাধ্যমে স্বাস্থ্যকর ওজন বজায় রাখা আপনার ঝুঁকি কমাতে সাহায্য করতে পারে। স্বাস্থ্যকর খাবার খান: ফল, শাকসবজি, গোটা শস্য এবং চর্বিহীন প্রোটিন সমৃদ্ধ একটি স্বাস্থ্যকর খাদ্য আপনার লিভারকে সুস্থ রাখতে এবং লিভারের জন্ডিস হওয়ার ঝুঁকি কমাতে সাহায্য করতে পারে। প্রক্রিয়াজাত খাবার, চিনিযুক্ত পানীয় এবং অতিরিক্ত পরিমাণে স্যাচুরেটেড এবং ট্রান্স ফ্যাট এড়িয়ে চলুন। ব্যায়াম নিয়মিত: ব্যায়াম লিভারের কার্যকারিতা উন্নত করতে সাহায্য করে এবং লিভারে চর্বি জমা কমায়। নিয়মিত ব্যায়াম স্বাস্থ্যকর ওজন বজায় রাখতেও সাহায্য করে, যা আপনার লিভার জন্ডিস হওয়ার ঝুঁকিকে আরও কমিয়ে দেয়।

লিভার জন্ডিসের চিকিৎসা

আপনি যদি জন্ডিসের কোনো উপসর্গের সম্মুখীন হন, তাহলে যত তাড়াতাড়ি সম্ভব চিকিৎসকের পরামর্শ নেওয়া গুরুত্বপূর্ণ। আপনার জন্ডিসের কারণ নির্ধারণের জন্য আপনার ডাক্তার একটি শারীরিক পরীক্ষা, সেইসাথে একটি সিরিজ পরীক্ষা করবেন। এই পরীক্ষাগুলির মধ্যে রক্ত পরীক্ষা, প্রস্রাব পরীক্ষা, ইমেজিং পরীক্ষা এবং লিভার বায়োপসি অন্তর্ভুক্ত থাকতে পারে।

একবার আপনার জন্ডিসের কারণ নির্ণয় করা হলে, আপনার ডাক্তার উপযুক্ত চিকিৎসার সুপারিশ করবেন। জন্ডিসের চিকিৎসায় ওষুধ, জীবনযাত্রার পরিবর্তন এবং অস্ত্রোপচার অন্তর্ভুক্ত থাকতে পারে। আপনার ডাক্তার আপনার ব্যক্তিগত অবস্থার জন্য সর্বোত্তম চিকিত্সার সুপারিশ করবে।

১. প্রথমে, ড‌‌. ‌‌ ভাইরাল হেপাটাইটিস, ওষুধ বা গিলবার্টের সিন্ড্রোমের মতো জন্ডিসের অন্যান্য সম্ভাব্য কারণগুলি অস্বীকার করার জন্য একটি সম্পূর্ণ মেডিকেল ইতিহাস গ্রহণ করতে হবে। 2. একটি শারীরিক পরীক্ষা পরবর্তী সঞ্চালিত হবে। ডাক্তার লিভারের রোগের লক্ষণগুলি যেমন বর্ধিত লিভার বা প্লীহা সন্ধান করবেন। তারা ত্বক এবং চোখের হলুদ হওয়ার জন্যও পরীক্ষা করবে। 3. রক্তে বিলিরুবিনের উচ্চমাত্রার পরীক্ষা করার জন্য রক্ত পরীক্ষার আদেশ দেওয়া হবে। লিভার ফাংশন পরীক্ষারও আদেশ দেওয়া যেতে পারে। 4. যদি জন্ডিসের কারণ অজানা হয় তবে লিভারের বায়োপসি সঞ্চালিত হতে পারে। এটি এমন একটি পদ্ধতি যেখানে লিভার টিস্যুর একটি ছোট নমুনা অপসারণ করা হয় এবং একটি মাইক্রোস্কোপের নীচে পরীক্ষা করা হয়। 5. জন্ডিসের কারণ নির্ধারণ করা হয়ে গেলে, চিকিত্সা শুরু করা যেতে পারে। যদি জন্ডিস একটি ভাইরাল সংক্রমণের কারণে হয়, তবে এটি সাধারণত সময়ের সাথে সাথে নিজেই সমাধান করবে। যদি এটি লিভারের রোগের কারণে হয় তবে চিকিত্সা অন্তর্নিহিত অবস্থা পরিচালনার দিকে মনোনিবেশ করবে।

উপসংহার

লিভার জন্ডিস এমন একটি অবস্থা যা অনেক লোককে প্রভাবিত করতে পারে, তবে এটি এমন কিছু নয় যা ব্যাপকভাবে আলোচিত বা বোঝা যায়। যদি আপনি বা আপনার পরিচিত কেউ লিভার জন্ডিসে ভুগছেন, তবে এটি সম্পর্কে তথ্য জানা এবং এটি পরিচালনা করার জন্য পদক্ষেপ নেওয়া গুরুত্বপূর্ণ। যকৃতের জন্ডিস কী, এর কারণ, লক্ষণ, রোগ নির্ণয়, চিকিৎসা এবং প্রতিরোধের টিপস বোঝার মাধ্যমে আপনি বা আপনার প্রিয়জন সম্ভাব্য সর্বোত্তম যত্ন পান তা নিশ্চিত করতে সাহায্য করতে পারেন। আপনি যদি জন্ডিসের লক্ষণগুলি অনুভব করেন তবে যত তাড়াতাড়ি সম্ভব ডাক্তারের পরামর্শ নেওয়া গুরুত্বপূর্ণ।

Next Post Previous Post
No Comment
Add Comment
comment url