কিডনিতে পাথর হলে করণীয় - কিডনি পাথর গলায় কোন খাবার

প্রতিকারের চেয়ে প্রতিরোধই ভালো এটি কিডনি পাথর রোগের জন্য সত্য, একটি বেদনাদায়ক এবং সম্ভাব্য বিপজ্জনক চিকিৎসা অবস্থা যা সারা বিশ্বের লক্ষ লক্ষ মানুষকে প্রভাবিত করে। 

সুস্বাস্থ্য বজায় রাখতে এবং ভবিষ্যতে ব্যয়বহুল চিকিৎসা বিল এড়াতে কিডনিতে পাথর হলে করণীয়, কারণ ও চিকিৎসা সর্ম্পকে  জানা অপরিহার্য। অতএব, আপনি যদি নিম্নলিখিত উপসর্গগুলির মধ্যে কোনটি অনুভব করেন, তাহলে এখনই অবহিত হওয়া এবং ব্যবস্থা নেওয়া গুরুত্বপূর্ণ!

কিডনিতে পাথর হলে করণীয় - কিডনি পাথর গলায় কোন খাবার

কিডনিতে পাথর হলে করণীয়

কিডনিতে পাথর মূত্রনালীর সবচেয়ে সাধারণ এবং বেদনাদায়ক ব্যাধিগুলির মধ্যে একটি। আপনার যদি কিডনিতে পাথর থাকে, তাহলে আপনি প্রচণ্ড ব্যথা, বমি বমি ভাব, বমি, এমনকি আপনার প্রস্রাবে রক্তও অনুভব করতে পারেন।

কিডনিতে পাথরের চিকিৎসা এবং আপনার উপসর্গগুলি উপশম করতে আপনি অনেকগুলি জিনিস করতে পারেন। আপনার কিডনিতে পাথর থাকলে, আপনার ডাক্তার আপনাকে সুপারিশ করতে পারেন:

-প্রচুর তরল পান করুন

-ব্যথা কমানোর ওষুধ খান

-একটি হিটিং প্যাড ব্যবহার করুন বা গরম স্নান করুন

-পাথর পাস করার চেষ্টা করুন

আপনার যদি কিডনিতে পাথর থাকে তবে প্রচুর পরিমাণে তরল পান করা গুরুত্বপূর্ণ। এটি আপনার সিস্টেম থেকে পাথর ফ্লাশ করতে সাহায্য করবে। প্রতিদিন অন্তত আট গ্লাস পানি পান করার লক্ষ্য রাখতে হবে। আপনি পাথর দ্রবীভূত করতে সাহায্য করার জন্য ক্র্যানবেরি রস বা লেবুর রস পান করতে চাইতে পারেন।

আপনার কিডনিতে পাথর হলে, আপনার জন্য সবচেয়ে ভালো চিকিৎসার বিকল্প সম্পর্কে আপনার ডাক্তারের সাথে কথা বলা গুরুত্বপূর্ণ।

কিডনিতে পাথর হওয়ার লক্ষণ

কিডনিতে পাথর ছোট, শক্ত জমা হয় যা কিডনিতে তৈরি হয়। এগুলি খনিজ এবং অ্যাসিড লবণ দ্বারা গঠিত। কিডনিতে পাথর হলে অনেক ব্যথা ও অস্বস্তি হতে পারে।
কিডনিতে পাথরের সবচেয়ে সাধারণ লক্ষণ হল পিঠের নীচে বা পেটে তীব্র ব্যথা। এই ব্যথা সাধারণত হঠাৎ আসে এবং প্রায়ই যন্ত্রণাদায়ক হিসাবে বর্ণনা করা হয়। কিডনিতে পাথর অন্যান্য উপসর্গও সৃষ্টি করতে পারে, যেমন:
  • বমি বমি ভাব এবং বমি
  • প্রস্রাবে রক্ত
  • মূত্রনালীর সংক্রমণ
  • জ্বর এবং সর্দি
  • প্রস্রাব করতে অসুবিধা
যদি একটি কিডনিতে পাথর যথেষ্ট ছোট হয়, তবে এটি নিজে থেকেই শরীর থেকে বেরিয়ে যেতে পারে। কিন্তু বেশিরভাগ কিডনিতে পাথরের চিকিৎসার প্রয়োজন হয়। কিডনিতে পাথর প্রতিরোধের সর্বোত্তম উপায় হল প্রচুর পরিমাণে তরল পান করা এবং উচ্চ মাত্রার খনিজ এবং অ্যাসিড লবণ রয়েছে এমন খাবার এড়িয়ে চলা।

লেবু রসেই দূর হবে কিডনি পাথর

বেশিরভাগ মানুষই জানেন যে লেবু ভিটামিন সি-এর একটি বড় উৎস। কিন্তু আপনি কি জানেন যে লেবুর রস কিডনির পাথর দূর করতেও সাহায্য করতে পারে?

লেবুর রস সাইট্রিক অ্যাসিডের একটি প্রাকৃতিক উৎস এবং এটি কিডনিতে পাথর দ্রবীভূত করতে কার্যকর বলে প্রমাণিত হয়েছে। লেবুর রসে থাকা সাইট্রিক অ্যাসিড কিডনির পাথর ভেঙে ফেলতে সাহায্য করে এবং সহজে বেরোয়।
কিডনির পাথর দূর করতে লেবুর রস ব্যবহার করতে হলে দুই লেবুর রস এক কাপ পানিতে মিশিয়ে দিনে তিনবার পান করুন। এটি আরও সুস্বাদু করতে আপনি কিছুটা মধুও যোগ করতে পারেন।

কিডনিতে পাথরের প্রকারভেদ

ক্যালসিয়াম-অক্সালেট পাথর হল সবচেয়ে সাধারণ ধরনের কিডনি পাথর এবং এটি খাদ্যে ক্যালসিয়াম এবং অক্সালেটের ভারসাম্যহীনতার কারণে ঘটে। এগুলিকে আরও দুটি ভাগে ভাগ করা যায়: ক্যালসিয়াম পাথর এবং অক্সালেট পাথর। 

  1. ক্যালসিয়াম পাথর: ক্যালসিয়াম পাথরগুলি সাধারণত তাদের খাদ্যে উচ্চ মাত্রার ক্যালসিয়াম আছে বা যারা পর্যাপ্ত তরল পান করেন না তাদের মধ্যে পাওয়া যায়। 
  2. অক্সালেট পাথর: অক্সালেট পাথর সবচেয়ে বেশি দেখা যায় তাদের খাদ্যে অক্সালেটের উচ্চ মাত্রা রয়েছে বা যাদের কিডনিতে পাথর তৈরির জিনগত প্রবণতা রয়েছে।

কিভাবে বুঝবেন কিডনি ভালো আছে কি না?

আপনার কিডনি সুস্থ কিনা তা বলার কয়েকটি ভিন্ন উপায় রয়েছে। একটি উপায় হল প্রোটিনের জন্য আপনার প্রস্রাব পরীক্ষা করা। আপনার প্রস্রাবে প্রোটিন থাকলে তা কিডনির ক্ষতির লক্ষণ হতে পারে।

আরো পড়ুন :কিডনির সমস্যা হলে কোথায় কোথায় ব্যথা হয়

আপনার কিডনি সুস্থ কিনা তা বলার আরেকটি উপায় হল আপনার রক্তচাপ পরীক্ষা করা। আপনার রক্তচাপ বেশি হলে তা কিডনির ক্ষতির লক্ষণ হতে পারে।

কিডনি পাথর রোগ নির্ণয়

আপনি যদি উপরোক্ত উপসর্গগুলির মধ্যে কোনটি অনুভব করেন, তাহলে অবিলম্বে চিকিৎসা সেবা নেওয়া গুরুত্বপূর্ণ। আপনার ডাক্তার সম্ভবত অবস্থা নির্ণয়ের জন্য একটি সিরিজের পরীক্ষার আদেশ দেবেন। 

আরো পড়ুন : লিভার জন্ডিসের লক্ষণ কি

পরীক্ষাগুলির মধ্যে একটি প্রস্রাব বিশ্লেষণ, একটি পেটের এক্স-রে, একটি আল্ট্রাসাউন্ড, বা একটি সিটি স্ক্যান অন্তর্ভুক্ত থাকতে পারে। এই পরীক্ষাগুলি আপনার ডাক্তারকে পাথরের আকার, ধরন এবং অবস্থান নির্ধারণ করতে সাহায্য করবে এবং কোন জটিলতা ঘটেছে কিনা।

কিডনি পাথর গলায় কোন খাবার

যখন আপনার কিডনিতে পাথর হয়, তখন একটি স্বাস্থ্যকর খাবার খাওয়া গুরুত্বপূর্ণ যা নতুন পাথর তৈরি হওয়া রোধ করতে সাহায্য করবে। 

কিছু খাবার আছে যা কিডনি স্টোন রোগীদের জন্য বিশেষভাবে উপকারী এবং এগুলো যতটা সম্ভব আপনার ডায়েটে অন্তর্ভুক্ত করা উচিত। কিডনি পাথরের রোগীদের জন্য কিছু সেরা খাবারের তালিকা এখানে দেওয়া হল:

  1. পানি: প্রচুর পরিমাণে পানি পান করা কিডনিতে পাথর প্রতিরোধে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ কাজগুলোর মধ্যে একটি। প্রতিদিন অন্তত ৮ গ্লাস পানি পান করার লক্ষ্য রাখুন।
  2. সাইট্রাস ফল: সাইট্রাস ফল সাইট্রিক অ্যাসিড সমৃদ্ধ, যা কিডনির পাথর ভাঙতে সাহায্য করে। প্রচুর পরিমাণে কমলা, টমেটো, বাদাম, লেবু এবং জাম্বুরা খান।
  3. গাঢ় শাক-সবুজ: গাঢ় শাক-সবুজ যেমন পালং শাক এবং কালে-এ প্রচুর পরিমাণে ম্যাগনেসিয়াম থাকে, যা নতুন কিডনিতে পাথর তৈরি হওয়া রোধ করতে সাহায্য করে।
  4. বেরি: বেরিতে ম্যাগনেসিয়ামও বেশি থাকে এবং এতে অ্যান্টিঅক্সিডেন্টও থাকে, যা আপনার কিডনিকে ক্ষতির হাত থেকে রক্ষা করতে সাহায্য করতে পারে। প্রচুর পরিমাণে স্ট্রবেরি, ব্লুবেরি এবং রাস্পবেরি খান।

কিডনি পাথর প্রতিরোধের জন্য খাদ্য তালিকা পরিবর্তন

আপনার ডায়েটে কিছু সাধারণ পরিবর্তন করা আপনার কিডনিতে পাথর হওয়ার ঝুঁকি কমাতে সাহায্য করতে পারে। কম সোডিয়াম, প্রাণিজ প্রোটিন এবং অক্সালেট সমৃদ্ধ খাবারের সুষম খাদ্য খাওয়া কিডনিতে পাথরের গঠন প্রতিরোধে সাহায্য করতে পারে। আপনার তরল গ্রহণ বৃদ্ধি করাও গুরুত্বপূর্ণ, কারণ এটি আপনার সিস্টেম থেকে পাথরগুলিকে ফ্লাশ করতে সহায়তা করবে।

All Bangla News  👉 Tune Status 👈

এছাড়াও, ক্যালসিয়াম, ম্যাগনেসিয়াম এবং সাইট্রেট সমৃদ্ধ খাবার যোগ করলে কিডনিতে পাথর তৈরি হওয়া রোধ করা যায়। ক্যালসিয়াম সমৃদ্ধ খাবারের মধ্যে রয়েছে দুগ্ধজাত দ্রব্য, সবুজ শাকসবজি এবং বাদাম। ম্যাগনেসিয়াম সমৃদ্ধ খাবারের মধ্যে রয়েছে লেবু, গোটা শস্য এবং ডার্ক চকলেট। সাইট্রেট সমৃদ্ধ খাবারের মধ্যে রয়েছে কমলালেবু, লেবু এবং আঙ্গুর ফল।

উপসংহার

কিডনি পাথর রোগ একটি বেদনাদায়ক এবং সম্ভাব্য বিপজ্জনক। সুস্বাস্থ্য বজায় রাখতে এড়াতে কিডনিতে পাথর হলে করণীয় ও চিকিৎসা সর্ম্পকে জানা অপরিহার্য। অতএব, যদি আপনি উপরের উপসর্গগুলির মধ্যে কোনটি অনুভব করেন, তাহলে এখনই অবহিত হওয়া এবং ব্যবস্থা নেওয়া গুরুত্বপূর্ণ!

কিডনি পাথর রোগ থেকে নিজেকে রক্ষা করার সর্বোত্তম উপায় হল সচেতন থাকা এবং আপনার ঝুঁকি কমাতে পদক্ষেপ নেওয়া। 

FAQS: কিডনিতে পাথর হলে করণীয় সম্পর্কিত প্রায়শ জিজ্ঞাস্য প্রশ্নাবলী

Q: কিডনি স্টোন রোগ হওয়ার ঝুঁকির কারণগুলি কী কী?

A: কিডনি পাথর রোগ হওয়ার ঝুঁকির কারণগুলির মধ্যে রয়েছে এই অবস্থার পারিবারিক ইতিহাস, নির্দিষ্ট ওষুধ, একটি উচ্চ-সোডিয়াম বা উচ্চ-প্রোটিন খাদ্য এবং ডিহাইড্রেশন।

Q: কিডনিতে পাথর হওয়ার ঝুঁকি কমাতে কি করা যায়? 

A: কম সোডিয়াম এবং প্রাণীজ প্রোটিনযুক্ত একটি সুষম খাদ্য খাওয়া, প্রচুর পরিমাণে তরল পান করা এবং নির্দিষ্ট কিছু ওষুধ গ্রহণ করা আপনার কিডনিতে পাথর হওয়ার ঝুঁকি কমাতে সাহায্য করতে পারে।

Q: কিডনিতে পাথরের রোগ হলে কী করা উচিত? 

A: আপনি যদি কিডনি পাথর রোগের কোনো উপসর্গের সম্মুখীন হন, তাহলে অবিলম্বে চিকিৎসা সেবা নেওয়া জরুরি। আপনার ডাক্তার শর্তটি নির্ণয় করতে এবং আপনার ব্যক্তিগত প্রয়োজন অনুসারে একটি চিকিত্সা পরিকল্পনা তৈরি করতে সক্ষম হবেন।

Next Post Previous Post
No Comment
Add Comment
comment url