কিডনি পরিষ্কার রাখে এমন ১০ টি খাবার - কিডনি রোগীর খাবার তালিকা

কিডনি হল গুরুত্বপূর্ণ অঙ্গ যা আপনার রক্ত থেকে বর্জ্য ফিল্টার করতে এবং আপনার শরীরের তরল ভারসাম্য নিয়ন্ত্রণ করতে সাহায্য করে। এগুলি আপনার সিস্টেমে একটি স্বাস্থ্যকর স্তরের ইলেক্ট্রোলাইট (লবণ, পটাসিয়াম এবং অন্যান্য খনিজ) বজায় রাখতে সহায়তা করে। 

তাই কিডনি পরিষ্কার ও সুস্থ রাখে এমন খাবার খাওয়া জরুরি। এই প্রবন্ধে, কিডনি পরিষ্কার রাখে এমন ১০ টি খাবার নিয়ে আলোচনা করব যা আপনার কিডনি কে ভালো রাখবে এবং পরিষ্কার রাখতে সাহায্য করে।

কিডনি পরিষ্কার রাখে এমন ১০ টি খাবার - কিডনি রোগীর খাবার তালিকা

কিডনি পরিষ্কার রাখে এমন ১০ টি খাবার তালিকা

আজ আমরা কিডনি পরিষ্কার রাখে এমন ১০ টি খাবার দিকে নজর দেব যা আমাদের কিডনিকে পরিষ্কার রাখতে এবং সুস্থ করার জন্য কাজ করে। শাক-সবুজ থেকে প্রোটিন-সমৃদ্ধ মাংস, খাবারগুলিকে আপনার ডায়েটে অন্তর্ভুক্ত করুন !

মটরশুটি - কিডনি রোগীর খাবার

কিডনি মটরশুটি ফাইবার, প্রোটিন এবং ম্যাগনেসিয়াম সহ কিডনির স্বাস্থ্যের জন্য গুরুত্বপূর্ণ বেশ কয়েকটি পুষ্টির একটি দুর্দান্ত উত্স। এগুলিতে স্যাপোনিন নামক একটি পদার্থও রয়েছে, যা কিডনিকে ক্ষতির হাত থেকে রক্ষা করতে সাহায্য করে।

রসুন - কিডনি রোগীর খাবার  

রসুন অনেক খাবারের একটি সাধারণ উপাদান, কিন্তু আপনি কি জানেন যে এর কিছু চমত্কার অবিশ্বাস্য স্বাস্থ্য উপকারিতা রয়েছে? এক কথায়, কিডনি পরিষ্কার রাখতে রসুন দারুণ উপকারী। কারণ রসুন শরীর থেকে টক্সিন দূর করতে সাহায্য করে এবং সুস্থ রক্ত প্রবাহকেও উৎসাহিত করে। 

রসুন একটি প্রাকৃতিক মূত্রবর্ধক, যার মানে এটি শরীর থেকে অতিরিক্ত জল এবং লবণ বের করে দিতে সাহায্য করে। এটি গুরুত্বপূর্ণ কারণ অতিরিক্ত লবণ কিডনিতে পাথর এবং অন্যান্য সমস্যার কারণ হতে পারে।

তরমুজ - কিডনি রোগীর খাবার 

তরমুজ একটি সুস্বাদু এবং সতেজ ফল যা আপনার কিডনির জন্যও ভালো। তরমুজে প্রচুর পরিমাণে জলের উপাদান আপনার কিডনিকে হাইড্রেটেড রাখতে সাহায্য করে এবং টক্সিন বের করে দেয়।

এছাড়াও তরমুজ পটাশিয়ামের একটি ভালো উৎস, যা রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে সাহায্য করে এবং কিডনিকে সঠিকভাবে কাজ করে। আপনার কিডনি পরিষ্কার এবং সুস্থ রাখতে সাহায্য করার জন্য একটি স্বাস্থ্যকর খাদ্যের অংশ হিসাবে নিয়মিত তরমুজ খান।

আপেল - কিডনি রোগীর খাবার 

আপেল ফাইবারের একটি বড় উৎস, যা কিডনি পরিষ্কার রাখতে সাহায্য করে। এগুলিতে কোয়ারসেটিন নামক একটি অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট রয়েছে, যা কিডনির কোষগুলিকে ক্ষতির হাত থেকে রক্ষা করতে সহায়তা করে।

ব্লুবেরি - কিডনি রোগীর খাবার 

ব্লুবেরি আপনার কিডনি পরিষ্কার রাখতে সাহায্য করার জন্য একটি সুস্বাদু এবং পুষ্টিকর উপায়। ব্লুবেরিতে থাকা অ্যান্টিঅক্সিডেন্টগুলি কিডনিকে ক্ষতির হাত থেকে রক্ষা করতে সাহায্য করে, যেখানে উচ্চ পটাসিয়াম উপাদানগুলিকে সঠিকভাবে কাজ করতে সাহায্য করে।

আরো পড়ুন :কিডনির সমস্যা হলে কোথায় কোথায় ব্যথা হয়

প্রতিদিন এক মুঠো ব্লুবেরি খান, অথবা কিডনি-ক্লিনজিং ক্ষমতার অতিরিক্ত বৃদ্ধির জন্য আপনার প্রাতঃরাশের সিরিয়াল বা ওটমিলে যোগ করুন।

ক্র্যানবেরি - কিডনি রোগীর খাবার 

ক্র্যানবেরি এমন একটি খাবার যা প্রায়ই কিডনি সমস্যাযুক্ত লোকদের জন্য সুপারিশ করা হয়। ক্র্যানবেরিতে প্রচুর পরিমাণে অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট রয়েছে, যা কিডনিকে ক্ষতির হাত থেকে রক্ষা করতে সাহায্য করতে পারে। 

ক্র্যানবেরিতে এমন যৌগও রয়েছে যা মূত্রনালীর সংক্রমণ প্রতিরোধে সাহায্য করতে পারে, যা কিডনির সমস্যার একটি সাধারণ কারণ।

লেবু - কিডনি রোগীর খাবার 

লেবু হল একটি সাইট্রাস ফল যা ভিটামিন সি সমৃদ্ধ। এই ভিটামিন শরীরের জন্য গুরুত্বপূর্ণ কারণ এটি রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে এবং সংক্রমণের বিরুদ্ধে লড়াই করতে সাহায্য করে। লেবুতে সাইট্রিক অ্যাসিডও রয়েছে, যা কিডনিতে পাথর ভাঙতে সাহায্য করে এবং তাদের গঠনে বাধা দেয়।

পালং শাক - কিডনি রোগীর খাবার 

পালং শাক একটি সবুজ শাক যা পটাসিয়াম, ম্যাগনেসিয়াম এবং ভিটামিন এ, সি এবং কে সহ অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট এবং পুষ্টিতে বেশি। এটি ফাইবারের একটি ভাল উৎস।

আরো পড়ুন :যে কারনে কিডনিতে পানি জমে

পালং শাক ভিটামিন এবং খনিজ সমৃদ্ধ যা কিডনির স্বাস্থ্যের জন্য অপরিহার্য। পটাসিয়াম রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে সাহায্য করে এবং হৃদপিণ্ডকে সঠিকভাবে কাজ করে। ম্যাগনেসিয়াম কিডনিতে পাথর তৈরি হওয়া রোধ করতে সাহায্য করে। ভিটামিন এ এবং সি শরীরে অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট হিসেবে কাজ করে এবং কোষকে ক্ষতির হাত থেকে রক্ষা করতে সাহায্য করে। রক্ত জমাট বাঁধা এবং হাড়ের স্বাস্থ্যের জন্য ভিটামিন কে প্রয়োজনীয়।

পালং শাকের মতো ফলমূল এবং শাকসবজি সমৃদ্ধ খাবার খাওয়া শরীরে টক্সিন জমা কমিয়ে কিডনিকে সঠিকভাবে কাজ করতে সাহায্য করতে পারে।

কুমড়ো বীজ - কিডনি রোগীর খাবার 

কুমড়োর বীজ ম্যাগনেসিয়ামের একটি চমৎকার উৎস, যা কিডনির স্বাস্থ্যের জন্য অপরিহার্য। এগুলিতে পটাসিয়ামও রয়েছে, যা শরীরের ইলেক্ট্রোলাইটগুলিকে ভারসাম্য রাখতে সাহায্য করে।কুমড়োর বীজ ফাইবারের একটি ভালো উৎস, যা শরীর থেকে টক্সিন বের করে দিতে সাহায্য করে।

কিডনির জন্য ক্ষতিকর খাবার

কিছু খাবার আছে যা কিডনির জন্য ক্ষতিকর এবং আপনার কিডনি রোগ থাকলে এড়িয়ে যাওয়া উচিত। এর মধ্যে রয়েছে:-

  • লবণাক্ত খাবার: অত্যধিক লবণ উচ্চ রক্তচাপ এবং তরল ধরে রাখার কারণ হতে পারে, যা কিডনির ক্ষতির কারণ হতে পারে। কিডনির রোগীদের প্রতিদিন 2,000 মিলিগ্রামের বেশি সোডিয়াম খাওয়া উচিত নয়।
  • প্রক্রিয়াজাত মাংস: প্রক্রিয়াজাত খাবারে প্রায়ই সোডিয়াম এবং অস্বাস্থ্যকর চর্বি বেশি থাকে, যা কিডনিরও ক্ষতি করতে পারে।
  • চিনি পানীয়: চিনিযুক্ত পানীয় এবং খাবার এড়িয়ে চলুন। চিনি ওজন বৃদ্ধি এবং রক্তে শর্করার মাত্রা বাড়াতে পারে, যা কিডনি রোগে আক্রান্ত ব্যক্তিদের জন্য ক্ষতিকারক হতে পারে। অত্যধিক চিনি ডায়াবেটিস হতে পারে, যা কিডনি রোগের একটি প্রধান কারণ।
  • অ্যালকোহল: অতিরিক্ত মদ্যপান কিডনির ক্ষতি করতে পারে এবং দীর্ঘস্থায়ী কিডনি রোগ হতে পারে।

কিডনি পাথর গলায় কোন খাবার

যখন আপনার কিডনিতে পাথর হয়, তখন একটি স্বাস্থ্যকর খাবার খাওয়া গুরুত্বপূর্ণ যা নতুন পাথর তৈরি হওয়া রোধ করতে সাহায্য করবে। কিছু খাবার আছে যা কিডনি স্টোন রোগীদের জন্য বিশেষভাবে উপকারী এবং এগুলো যতটা সম্ভব আপনার ডায়েটে অন্তর্ভুক্ত করা উচিত। কিডনি পাথরের রোগীদের জন্য কিছু সেরা খাবারের তালিকা এখানে দেওয়া হল:

  1. পানি: প্রচুর পরিমাণে পানি পান করা কিডনিতে পাথর প্রতিরোধে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ কাজগুলোর মধ্যে একটি। প্রতিদিন অন্তত ৮ গ্লাস পানি পান করার লক্ষ্য রাখুন।
  2. সাইট্রাস ফল: সাইট্রাস ফল সাইট্রিক অ্যাসিড সমৃদ্ধ, যা কিডনির পাথর ভাঙতে সাহায্য করে। প্রচুর পরিমাণে কমলা, টমেটো, বাদাম, লেবু এবং জাম্বুরা খান।
  3. গাঢ় শাক-সবুজ: গাঢ় শাক-সবুজ যেমন পালং শাক এবং কালে-এ প্রচুর পরিমাণে ম্যাগনেসিয়াম থাকে, যা নতুন কিডনিতে পাথর তৈরি হওয়া রোধ করতে সাহায্য করে।
  4. বেরি: বেরিতে ম্যাগনেসিয়ামও বেশি থাকে এবং এতে অ্যান্টিঅক্সিডেন্টও থাকে, যা আপনার কিডনিকে ক্ষতির হাত থেকে রক্ষা করতে সাহায্য করতে পারে। প্রচুর পরিমাণে স্ট্রবেরি, ব্লুবেরি এবং রাস্পবেরি খান।
আরো পড়ুন : লিভার জন্ডিসের লক্ষণ কি।

কিডনির সমস্যা হলে কী খাওয়া উচিত?

যখন আপনার কিডনির সমস্যা হয়, তখন একটি স্বাস্থ্যকর খাবার খাওয়া গুরুত্বপূর্ণ যা আপনার কিডনিকে সমর্থন করবে এবং আরও ক্ষতি প্রতিরোধ করবে। আপনার ডায়েটে অন্তর্ভুক্ত করার জন্য এখানে কিছু নির্দিষ্ট জিনিস রয়েছে:

  • উচ্চ প্রোটিন জাতীয় খাবার যেমন মাংস, মুরগি, মাছ, মটরশুটি এবং টফু।
  • আলু, মিষ্টি আলু, টমেটো, কলা, তরমুজ এবং কমলালেবুর মতো উচ্চ পটাশিয়ামযুক্ত খাবার।
  • কম সোডিয়ামযুক্ত খাবার যেমন তাজা ফল এবং শাকসবজি, গোটা শস্য এবং কম সোডিয়াম স্যুপ এবং ঝোল।
  • ফসফরাস কম খাবার যেমন দুগ্ধজাত দ্রব্য (দুধ, দই, পনির), ডিম, বাদাম, বীজ এবং নির্দিষ্ট তেল (অলিভ অয়েল এবং ক্যানোলা অয়েল)।

উপসংহার

কিডনি শরীরের একটি অপরিহার্য অঙ্গ, তাই তাদের সঠিকভাবে কাজ করা গুরুত্বপূর্ণ। আপনার ডায়েটে এই কিডনি পরিষ্কার রাখে এমন ১০ টি খাবার অন্তর্ভুক্ত করে, আপনি নিশ্চিত করতে পারেন যে আপনার কিডনি সুস্থ এবং পরিষ্কার থাকবে।

মনে রাখবেন যে সামগ্রিক স্বাস্থ্যের জন্য সুষম পুষ্টি সর্বদা সর্বোত্তম, তাই অন্যান্য পুষ্টিকর খাবারগুলিও অন্তর্ভুক্ত করতে ভুলবেন না! সর্বোপরি, আপনার কিডনির কার্যকারিতা যত বেশি স্বাস্থ্যকর হবে, আপনার জীবনযাত্রা তত উন্নত হবে।

All Bangla News  👉 Tune Status 👈

FAQS: কিডনি রোগীদের জন্য খাদ্য সম্পর্কিত প্রায়শ জিজ্ঞাস্য প্রশ্নাবলী

Q. কিডনি রোগীদের জন্য সেরা খাবার কি ?

A. কিডনি রোগে আক্রান্ত ব্যক্তির জন্য স্বাস্থ্যকর ডায়েটে লবণ, চর্বি এবং প্রোটিন কম এবং অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট এবং ফাইবার বেশি হওয়া উচিত। তাজা ফল এবং সবজি, গোটা শস্য, এবং কম চর্বিযুক্ত দুগ্ধজাত দ্রব্য সাধারণত কিডনি রোগীদের জন্য সুপারিশ করা হয়।

Q. কিডনি রোগীর কি খাবার এড়িয়ে চলা উচিত?

A. সাধারণত কিডনি রোগীদের লবণ, চর্বি এবং প্রোটিন সমৃদ্ধ খাবার এড়িয়ে চলার পরামর্শ দেওয়া হয়। প্রক্রিয়াজাত খাবার, চিনিযুক্ত পানীয় এবং উচ্চ স্যাচুরেটেড ফ্যাটযুক্ত খাবারও এড়ানো উচিত।

Next Post Previous Post
No Comment
Add Comment
comment url