কিডনির সমস্যা হলে কোথায় কোথায় ব্যথা হয় - কিডনির ব্যথা কোথায় হয়

আমরা যারা কিডনির সমস্যায় ভুগছি, আমরা জানি যে এর সাথে যে ব্যথা এবং অস্বস্তি আসে। কিন্তু ঠিক কী কারণে এই ব্যথা হয়? আমাদের শরীরে ব্যথা কোথা থেকে উৎপন্ন হয়? 

এই ব্লগ পোস্টে, আমরা কিডনির সমস্যা হলে কোথায় কোথায় ব্যথা হয়  এবং আমরা কিডনি-সম্পর্কিত কিছু সাধারণ লক্ষণ ও উপসর্গ নিয়েও আলোচনা করব এবং সেইসাথে সম্ভাব্য চিকিৎসার তথ্যও দেব। তাহলে চলুন শুরু করা যাক।

কিডনির সমস্যা হলে কোথায় কোথায় ব্যথা হয় - কিডনির ব্যথা কোথায় হয়

কিডনির সমস্যা হলে কোথায় কোথায় ব্যথা হয়  

কিডনির সমস্যা হলে মূলত পিঠে বা মেরুদণ্ডের ডানে ও বামে কিডনির ব্যথা অনুভূত হয়ে থাকে। এটি পেটের সামনে, পাঁজরের ঠিক নীচেও অনুভূত হতে পারে। ব্যথা তীক্ষ্ণ, নিস্তেজ বা জ্বলন্ত হতে পারে।

কিডনির ব্যথা প্রায়শই একটি নিস্তেজ ব্যথা যেটি স্পর্শ করলে তীক্ষ্ণ হয়ে উঠতে পারে। কখনও কখনও কিডনির ব্যথার সাথে অন্যান্য উপসর্গ দেখা যায়, যেমন বমি বমি ভাব, বমি, জ্বর বা মূত্রনালীর সংক্রমণ।

কিভাবে বুঝবেন কিডনির ব্যথা

কিডনির ব্যথা বোঝার জন্য আপনার কিছু বিষয় জানা উচিত। প্রথমত, এটা জানা গুরুত্বপূর্ণ যে আপনার কিডনি আপনার পিঠের নিচের অংশে, আপনার পাঁজরের ঠিক নীচে অবস্থিত। এর মানে হল যে কিডনি ব্যথা সাধারণত আপনার নীচের পিঠে, পাশে বা পেটে অনুভব হবে। 

উপরন্তু, অন্তর্নিহিত সমস্যার তীব্রতার উপর নির্ভর করে কিডনিতে ব্যথার তীব্রতা পরিবর্তিত হতে পারে। উদাহরণস্বরূপ, যদি আপনার কিডনিতে পাথর থাকে তবে আপনি তীব্র ব্যথা অনুভব করতে পারেন যা তরঙ্গের মধ্যে আসে এবং যায়। অন্যদিকে, যদি আপনার সংক্রমণ থাকে তবে আপনার আরও ধ্রুবক, নিস্তেজ ব্যথা হতে পারে।

আরো পড়ুন :দ্রুত ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণ করার উপায়।

কিডনিতে ব্যথা বোঝার জন্য আরো রয়েছে বমি বমি ভাব,  জ্বর বা প্রস্রাবের পরিবর্তনের মতো অন্যান্য লক্ষণগুলি এগুলিকেও মনোযোগ দিন। আপনি যদি উদ্বিগ্ন হন যে আপনি কিডনিতে ব্যথা অনুভব করছেন, তাহলে রোগ নির্ণয়ের জন্য একজন স্বাস্থ্যসেবা ডাক্তারের সাথে পরামর্শ করুন।

কিডনির ব্যথা থেকে মুক্তির উপায়

কিডনির ব্যথা থেকে মুক্তি পেতে পারেন কয়েকটি উপায়। প্রথম উপায় হল প্রচুর পরিমাণে তরল পান করা। এটি আপনার শরীরের টক্সিন বের করে দিতে সাহায্য করবে এবং ব্যথা কমাতে সাহায্য করবে।

আপনি যদি কিডনিতে ব্যথা অনুভব করেন তবে এটি থেকে মুক্তি পেতে আপনি কিছু জিনিস করতে পারেন। এখানে কিডনির ব্যথা থেকে মুক্তি পাওয়ার 4 টি উপায় রয়েছে:

  • প্রচুর পরিমাণে তরল পান করুন: এটি আপনার কিডনি ফ্লাশ করতে এবং ব্যথা কমাতে সাহায্য করবে।
  • ওভার-দ্য-কাউন্টার ব্যথার ওষুধ নিন: আইবুপ্রোফেন বা অ্যাসিটামিনোফেন ব্যথা উপশম করতে সাহায্য করতে পারে।
  • আক্রান্ত স্থানে তাপ লাগান: অস্বস্তি কমাতে একবারে 20-30 মিনিটের জন্য একটি হিটিং প্যাড বা গরম জলের বোতল ব্যবহার করুন।
  • ম্যাসেজ করার চেষ্টা করুন: নীচের পিঠে একটি মৃদু ম্যাসেজ টানটান পেশী শিথিল করতে এবং ব্যথা কমাতে সাহায্য করতে পারে।

কিডনি ব্যথার সাধারণ কারণ

কিডনি ব্যথার বিভিন্ন কারণ থাকতে পারে। কিছু সাধারণ কারণ অন্তর্ভুক্ত:

কিডনিতে পাথর: কিডনিতে পাথর কিডনি ব্যথার অন্যতম সাধারণ কারণ। এগুলি ছোট, শক্ত জমা যা কিডনিতে তৈরি হয় এবং প্রস্রাব সিস্টেমের মধ্য দিয়ে যাওয়ার সময় তীব্র ব্যথা হতে পারে।

মূত্রনালীর সংক্রমণ: মূত্রনালীর সংক্রমণ (ইউটিআই) কিডনি ব্যথার আরেকটি সাধারণ কারণ। যখন ব্যাকটেরিয়া মূত্রতন্ত্রে প্রবেশ করে এবং সংখ্যাবৃদ্ধি করে, তখন জ্বালা এবং প্রদাহ সৃষ্টি করে ইউটিআই গুলি ঘটে।

আরো পড়ুন : লিভার জন্ডিসের লক্ষণ কি।

কিডনি ক্যান্সার: কিডনি ক্যান্সার কিডনি ব্যথার একটি কম সাধারণ কারণ, তবে এটি এখনও হতে পারে। কিডনি ক্যান্সার সাধারণত বয়স্ক প্রাপ্তবয়স্কদের মধ্যে ঘটে এবং প্রভাবিত কিডনিতে একটি নিস্তেজ ব্যথা বা তীব্র ব্যথা হতে পারে।

কিডনি সংক্রমণের লক্ষণগুলি কী কী?

কিডনি সংক্রমণ সাধারণত মূত্রনালীর সংক্রমণ (UTI) হিসাবে শুরু হয়, যা আপনার মূত্রতন্ত্রের সংক্রমণ। ইউটিআইগুলি ব্যাকটেরিয়া দ্বারা সৃষ্ট হয় এবং এগুলি আপনার মূত্রাশয়, মূত্রনালী এবং কিডনি সহ আপনার মূত্রতন্ত্রের যে কোনও জায়গায় ঘটতে পারে।

একটি কিডনি সংক্রমণের সবচেয়ে সাধারণ উপসর্গ হল আপনার নিচের পিঠে বা পাশে ব্যথা। এই ব্যথা সাধারণত খারাপ হয় যখন আপনি প্রস্রাব করেন বা ঘোরাফেরা করেন। অন্যান্য উপসর্গ অন্তর্ভুক্ত হতে পারে:

  1. জ্বর
  2. ঠান্ডা
  3. বমি বমি ভাব এবং বমি
  4. স্বাভাবিকের চেয়ে বেশি ঘন ঘন প্রস্রাব করা, বা একবারে অল্প অল্প করে প্রস্রাব করতে সক্ষম হওয়া
  5. প্রস্রাব করার সময় ব্যথা বা জ্বালাপোড়া
  6. মেঘলা প্রস্রাব যাতে কখনও কখনও পুঁজ বা রক্ত থাকতে পারে

কিডনিতে ব্যথা কেন হয়?

কিডনিতে ব্যথা হওয়ার কয়েকটি কারণ রয়েছে। সবচেয়ে সাধারণ কারণ হল কিডনিতে পাথর হওয়া। পাথর কিডনিতে ঘোরাফেরা করলে ব্যথা হতে পারে। 

আরো পড়ুন : ডায়াবেটিসের জন্য সেরা ৫টি ব্যায়াম

কিডনি ব্যথার অন্যান্য কারণগুলির মধ্যে রয়েছে কিডনির সংক্রমণ বা প্রদাহ, মূত্রনালীর বাধা বা কিডনিতে টিউমার। কিডনি ব্যথার চিকিত্সা অন্তর্নিহিত কারণের উপর নির্ভর করে।

উপসংহার

আজকে এই পোষ্টে আমরা আলোচনা করলাম কিডনির সমস্যা হলে কোথায় কোথায় ব্যথা হয়, যা সমস্যার তীব্রতা এবং প্রকারের উপর নির্ভর করে। আপনার কিডনির সমস্যা থাকলে কোথায় ব্যথা হতে পারে তা জেনে রাখা যেকোন সমস্যাকে তাড়াতাড়ি শনাক্ত করার জন্য গুরুত্বপূর্ণ যাতে সেগুলি দ্রুত এবং চিকিত্সা করা উচিত।

All Bangla News  👉 Tune Status 👈

FAQS: প্রায়শই জিজ্ঞাসিত প্রশ্ন কিডনি সমস্যার লক্ষণ সম্পর্কে প্রায়শই জিজ্ঞাসিত প্রশ্নাবলী- 

Q:কিডনির সমস্যার লক্ষণগুলো কী কী?

A: কিডনি হল গুরুত্বপূর্ণ অঙ্গ যা রক্ত থেকে বর্জ্য এবং টক্সিন ফিল্টার করতে সাহায্য করে। কিডনির সমস্যা ব্যথা সহ বিভিন্ন উপসর্গ সৃষ্টি করতে পারে। (১) তলপেটে বা পিঠে ব্যথা (২) পায়ের গোড়ালি, পায়ে বা পায়ে ফোলাভাব (৩) ফোলা চোখ বা মুখ ফুলে যাওয়া (৪) প্রস্রাব বেড়ে যাওয়া বা প্রস্রাব করতে (৫) অসুবিধা হওয়া (৬) প্রস্রাবে রক্ত (৭) জ্বর ও ক্লান্তি।

Q:কিডনির সমস্যা কীভাবে প্রতিরোধ করা যায়?

A: কিডনি সুস্থ রাখতে আপনি কিছু গুরুত্বপূর্ণ কাজ করতে পারেন প্রতিদিন প্রচুর পানি এবং অন্যান্য তরল পান করুন (অন্তত আট গ্লাস) এছাড়া নিয়মিত ব্য়াযাম করুন ও কম লবণ, চর্বি এবং কোলেস্টেরল যুক্ত স্বাস্থ্যকর খাবার খান।

Q:কিডনি কি কি কাজ করে?

A: কিডনির বিভিন্ন কাজ রয়েছে, তবে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ একটি হল রক্ত থেকে বর্জ্য এবং বিষাক্ত পদার্থগুলিকে ফিল্টার করা। কিডনি শরীরের তরল মাত্রা, ইলেক্ট্রোলাইটের মাত্রা এবং রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণ করতেও সাহায্য করে। যখন কিডনিতে সমস্যা হয়, তখন এটি রক্তে টক্সিন তৈরি করতে পারে যা ব্যথার কারণ হতে পারে।
Next Post Previous Post
No Comment
Add Comment
comment url