পদ্মা সেতু সম্পর্কে সাধারণ জ্ঞান – পদ্মা সেতু a to z

Update:

[post-views]

পদ্মা সেতু বাংলাদেশের অন্যতম উচ্চাভিলাষী অবকাঠামো প্রকল্প। পদ্মা নদীর উপর 6.15 কিলোমিটার বিস্তৃত এই সেতুটি দেশের দুটি প্রধান শহরকে সংযুক্ত করবে এবং ফেরি এবং অন্যান্য অস্থায়ী পরিবহনের মাধ্যমে দীর্ঘ দূরত্ব ভ্রমণকারী যাত্রীদের জন্য অত্যন্ত প্রয়োজনীয় ত্রাণ সরবরাহ করবে।

সেতুটি যানজট হ্রাস করবে, মালবাহী চলাচলের উন্নতি করবে, পর্যটনকে উত্সাহিত করবে এবং এই অঞ্চলে বৃহত্তর অর্থনৈতিক সুযোগ আনবে বলে আশা করা হচ্ছে। এই ব্লগ পোস্টে, আমরা পদ্মা সেতু সম্পর্কে সাধারণ জ্ঞান নিয়ে আলোচনা করব: এর ইতিহাস, নির্মাণ প্রক্রিয়া, সুবিধা এবং বাংলাদেশের জন্য গুরুত্ব।

পদ্মা সেতু সম্পর্কে সাধারণ জ্ঞান - পদ্মা সেতু a to z

পদ্মা সেতু সম্পর্কে সাধারণ জ্ঞান

পদ্মা সেতু বাংলাদেশে অবস্থিত। এটি পদ্মা নদী পর্যন্ত বিস্তৃত, দেশের রাজধানী ঢাকার সাথে দক্ষিণাঞ্চলীয় শহর বরিশালের সাথে সংযোগ স্থাপন করেছে। সেতুটি 6.15 কিলোমিটার দীর্ঘ এবং এটি বাংলাদেশের বৃহত্তম সেতুগুলির মধ্যে একটি।

পদ্মা সেতু কোন জেলায় অবস্থিত

পদ্মা সেতু বাংলাদেশের দক্ষিণাঞ্চলে পদ্মা নদীর উপর অবস্থিত। সেতুটি মুন্সীগঞ্জ ও শরীয়তপুর দুই জেলাকে সংযুক্ত করেছে।

পদ্মা সেতু বাংলাদেশের ফরিদপুর ও মাদারীপুর জেলায় অবস্থিত। সেতুটি পদ্মা নদীর উপর বিস্তৃত, দেশের রাজধানী ঢাকার সাথে দক্ষিণাঞ্চলীয় জেলা বরিশাল ও বাগেরহাটের সাথে সংযোগ স্থাপন করেছে।

পদ্মা সেতুর দৈর্ঘ্য ও প্রস্থ কত

সেতুটির দৈর্ঘ্য 6.15 কিলোমিটার এবং প্রস্থ 21.65 মিটার। এটি ইস্পাত এবং কংক্রিট দিয়ে তৈরি এবং মোট 41টি স্প্যান রয়েছে। প্রতিটি স্প্যানের দৈর্ঘ্য 150 মিটার। সেতুটির স্প্যান গুলোর মোট ওজন 1,16,388 টন সেতুটির মূল স্প্যানটি 200 মিটার এবং পাশের স্প্যানগুলি 150 মিটার। 

সেতুটির মোট পিলারের সংখ্যা 42 টি, সেতুরটির নির্মাণ কাজ শুরু মাওয়া প্রান্তে 6 নম্বর পিলারের কাজ দিয়ে। জমি অধিগ্রহণ 918 হেক্টর এবং সেতুটিতে দৈনিক 75 হাজার যানবাহন চলাচল করার সক্ষমতা রয়েছে ,পানির স্তর থেকে সেতুর উচ্চতা প্রায় 18 মিটার এবং নদীশাসন 16.21 কিলোমিটার

পদ্মা সেতু নির্মাণে ব্যবহৃত সামগ্রী

পদ্মা সেতু বাংলাদেশের অন্যতম বৃহত্তম সেতু। এটি একটি বহুমুখী সেতু যা দেশের রাজধানী ঢাকার সাথে দক্ষিণাঞ্চলীয় জেলা বরিশালকে সংযুক্ত করবে। বাংলাদেশের অন্যতম প্রধান নদী পদ্মা নদীর উপর সেতুটি নির্মিত হচ্ছে। সেতুটির মোট দৈর্ঘ্য 6.15 কিলোমিটার (3.8 মাইল), এবং এটির প্রস্থ 21 মিটার হবে।

আরো পড়ুন: বাংলাদেশের প্রথম ব্যাংক কোনটি

পদ্মা সেতু স্টিল, কংক্রিট, মাটি ভরাটসহ বিভিন্ন উপকরণ ব্যবহার করে নির্মাণ করা হচ্ছে। সেতু নির্মাণে ব্যবহৃত ইস্পাত সরবরাহ করছে দক্ষিণ কোরিয়ার ইস্পাত কোম্পানি POSCO। সেতুর জন্য কংক্রিট সরবরাহ করছে বাংলাদেশ, ভারত ও চীনের সিমেন্ট কোম্পানিগুলো।

পদ্মা সেতুর কাজ কবে শুরু হয়

পদ্মা সেতুর নির্মাণকাজ ৭ই ডিসেম্বর ২০১৪ মূল কাজ শুরু করা হয় মাওয়া প্রান্তে ৬ নম্বর পিলারের কাজ দিয়ে। এবং নির্মাণ কাজ সম্পূর্ণ হয় ২৫ জুন ২০২২। এ পর্যন্ত ৩,০০০ এরও বেশি শ্রমিক এই প্রকল্পে নিযুক্ত হয়েছেন।
পদ্মা সেতু বাংলাদেশের নির্মাণাধীন একটি বহুমুখী সড়ক-রেল সেতু। এটি দেশের দক্ষিণাঞ্চলকে রাজধানী ঢাকাসহ অন্যান্য বড় শহরের সঙ্গে যুক্ত করবে। প্রকল্পটি বাংলাদেশ সরকারের অর্থায়নে পরিচালিত হয়েছে।

পদ্মা সেতু হবে বাংলাদেশের বৃহত্তম সেতু কাঠামো এবং দক্ষিণ এশিয়ার দীর্ঘতম সেতুগুলির একটি।সেতুটিতে যানবাহনের জন্য ছয় লেন এবং দুটি রেলপথ থাকবে।

পদ্মা সেতুর মোট খরচ কত?

পদ্মা সেতুর ব্যয় করা হয়েছে ৩.৫ বিলিয়ন ডলার বা ৩০ হাজার ১৯৩ দশমিক ৩৯ কোটি টাকা। এসব খরচের মধ্যে রয়েছে সেতুর অবকাঠামো তৈরি, নদী শাসন, সংযোগ সড়ক, ভূমি অধিগ্রহণ, পুনর্বাসন ও পরিবেশ, বেতন ইত্যাদি। 

পদ্মা সেতু বাংলাদেশে পদ্মা নদীর উপর অবস্থিত। এটি দেশের অন্যতম বৃহত্তম সেতু এবং দক্ষিণ এশিয়ার দীর্ঘতম সেতু। সেতুটির মোট ব্যয় প্রায় ৩.৫ বিলিয়ন ডলার।

সেতুটি পরিবহন খরচ ও সময় কমিয়ে এবং দেশের বিভিন্ন অঞ্চলের মধ্যে সংযোগ উন্নত করে বাংলাদেশের অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি বাড়াবে বলে আশা করা হচ্ছে। এটি নির্মাণের সময়কালে প্রায় 1.5 মিলিয়ন কর্মসংস্থান সৃষ্টি করবে বলে আশা করা হচ্ছে।

পদ্মা সেতু উদ্বোধনের তারিখ

পদ্মা সেতু হল একটি 6.15-কিলোমিটার (3.83 মাইল) দীর্ঘ সেতু যা বাংলাদেশের পদ্মা নদীর দক্ষিণ ও উত্তর তীরকে সংযুক্ত করে। এটি দেশের বৃহত্তম এবং দক্ষিণ এশিয়ার বৃহত্তম সেতুগুলির মধ্যে একটি। সেতুটি 25 জুন 2022 তারিখে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা উদ্বোধন করেন।

পদ্মা সেতুর নির্মাণকাজ শুরু হয়েছিল ৭ই ডিসেম্বর ২০১৪ সালে। সেতুটি রাজধানী ঢাকা থেকে প্রায় 20 কিলোমিটার (12 মাইল) দূরে মাওয়ায় অবস্থিত। এটি 23টি উত্তরের জেলার সাথে 21টি দক্ষিণ জেলাকে সংযুক্ত করবে এবং ঢাকা এবং দেশের দক্ষিণাঞ্চলের মধ্যে ভ্রমণের সময় 3 ঘন্টা পর্যন্ত কমিয়ে দেবে।

আরো পড়ুন: বিশ্বের 10 টি সবচেয়ে বড় দেশ।

প্রকল্পটির মোট ব্যয় আনুমানিক US$3.5 বিলিয়ন, যা এটিকে এখন পর্যন্ত বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় অবকাঠামো প্রকল্পে পরিণত করেছে। সরকারি তহবিল দেশি-বিদেশি বিনিয়োগের সমন্বয়ে সেতুটি নির্মাণ করা হচ্ছে।

পদ্মা সেতু বিশ্বের কততম সেতু

উইকিপিডিয়ার  তালিকায় ৬.১৫ কিলোমিটার দৈর্ঘ্যের পদ্মা সেতুকে ১৩৫ তম অবস্থানে রাখা হয়েছে। তালিকায় তার উপরে, ১৩৪ তম অবস্থানে রয়েছে ভারতের দিবাং ব্রিজ, যেটির দৈর্ঘ্য ৬.২ কিলোমিটার।

পদ্মা সেতু ৬.১৫ কিলোমিটার দীর্ঘ, এটিকে বাংলাদেশের বৃহত্তম যা দক্ষিণ এশিয়ার চতুর্থ দীর্ঘতম সেতু করে তুলেছে।

পদ্মা সেতুর অর্থনৈতিক গুরুত্ব

পদ্মা সেতু একটি বহুমুখী সেতু যা দেশের রাজধানী ঢাকার সাথে বাংলাদেশের দক্ষিণাঞ্চলকে সংযুক্ত করবে। সেতুটি বাংলাদেশে যোগাযোগ ও পরিবহনের উন্নতির পাশাপাশি এই অঞ্চলে অর্থনৈতিক উন্নয়নের জন্য নির্মিত হচ্ছে।

পদ্মা সেতুটি  দক্ষিণাঞ্চলীয় জেলা বরিশাল জেলাকে সংযুক্ত করে। এটি হবে বাংলাদেশের দীর্ঘতম সেতু, এবং এশিয়ার অন্যতম বৃহত্তম সেতু। সেতুটি গাড়ি, বাস, ট্রাক এবং ট্রেন সহ সমস্ত আকারের যানবাহনকে মিটমাট করতে সক্ষম হবে৷

পদ্মা সেতু কে নির্মাণ করেন?

চায়না রেলওয়ে মেজর ব্রিজ ইঞ্জিনিয়ারিং গ্রুপ কোং লিমিটেড (সিআরএমবিইজি) এর নেতৃত্বে চীনা, ভারতীয় এবং বাংলাদেশী কোম্পানিগুলির একটি কনসোর্টিয়াম সেতুটি তৈরি করেছে। নির্মাণের মোট খরচ ছিল US$3.5 বিলিয়ন, এটিকে এখন পর্যন্ত নির্মিত সবচেয়ে ব্যয়বহুল সেতুগুলির মধ্যে একটি।

পদ্মা সেতু বাংলাদেশের পদ্মা নদীর উপর একটি বহুমুখী সড়ক-রেল সেতু। সেতুটি এখন পর্যন্ত দেশের সবচেয়ে বড় অবকাঠামো প্রকল্প। 6.15-কিলোমিটার (3.83 মাইল) সেতুটির নির্মাণকাজ 7  ডিসেম্বর 2014 সালে শুরু হয়েছিল এবং এটি 25 জুন 2022 এ যান চলাচলের জন্য খুলে দেওয়া হয়েছিল।

আরো পড়ুন:  শীর্ষ 10 সেরা মোবাইল ফোন কোম্পানি

পদ্মা সেতু বাংলাদেশের এমন একটি এলাকায় অবস্থিত যেটি বন্যা এবং ঘূর্ণিঝড় প্রবণ, তাই এর নকশায় প্রধান নদী চ্যানেলের উভয় পাশে একটি 400-মিটার (1,300 ফুট) প্রশস্ত প্লাবনভূমি রয়েছে যাতে বন্যার জল দ্রুত বিলীন হয় এবং ক্ষতি রোধ করা যায়। সেতু নিজেই

প্রতিদিন কত মানুষ পদ্মা সেতু ব্যবহার করেন?

পদ্মা সেতু বাংলাদেশের অন্যতম বৃহৎ সেতু। এটি পদ্মা নদী পর্যন্ত বিস্তৃত এবং দেশের দুটি বৃহত্তম শহর ঢাকা ও  দক্ষিণাঞ্চলীয় জেলা ও বরিশাল জেলাকে সংযুক্ত  করেছে। সেতুটি 2022 সালের জুন মাসে জনসাধারণের জন্য উন্মুক্ত করা হয়েছিল, এবং তারপর থেকে, এটি জীবনের একটি গুরুত্বপূর্ণ অংশ হয়ে উঠেছে।

বাংলাদেশ সেতু কর্তৃপক্ষের তথ্য অনুযায়ী, পদ্মা সেতু দিয়ে প্রতিদিন গড়ে ৫০ হাজার যানবাহন চলাচল করে। এই সংখ্যা আরও বাড়বে বলে আশা করা হচ্ছে যেহেতু আরও বেশি মানুষ সেতুটি ব্যবহার করার সুবিধাগুলি সম্পর্কে জানতে পারবে৷

All Bangla News  👉 Tune Status 👈

পদ্মা সেতু ঢাকা ও চট্টগ্রামের মধ্যে ভ্রমণের সময় উল্লেখযোগ্যভাবে হ্রাস করেছে এবং এটি দুই শহরের মধ্যে বাণিজ্য ও পর্যটনকেও বাড়িয়ে দিয়েছে।

উপসংহার

পদ্মা সেতু বাংলাদেশের সবচেয়ে উচ্চাভিলাষী এবং আইকনিক অবকাঠামো প্রকল্পগুলির মধ্যে একটি, যা ঢাকা এবং দেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের মধ্যে একটি গুরুত্বপূর্ণ পরিবহন সংযোগ প্রদান করে।আমরা আশা করি এই নিবন্ধটি আপনাকে এই সেতুটি মানুষের সাথে সংযোগ স্থাপনে এবং সেইসাথে বাংলাদেশীদের জন্য অর্থনৈতিক সুবিধা প্রদানের ক্ষেত্রে যে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে তা বুঝতে সাহায্য করেছে।

এই ধরনের বৃহৎ পরিকাঠামোতে বিনিয়োগ করা সকল নাগরিকের জন্য একটি সমৃদ্ধ ভবিষ্যত গড়ে তুলতে সাহায্য করার মূল চাবিকাঠি—এবং এটি দীর্ঘস্থায়ী হতে পারে!

Leave a Comment