জেনে নিন হার্টের সমস্যার লক্ষণ ও প্রতিকার – হার্টের সমস্যা গুলো কি কি।

Update:

[post-views]

হার্টের সমস্যার লক্ষণ ও প্রতিকার- হার্টের সমস্যা, যা কার্ডিওভাসকুলার ডিজিজ নামেও পরিচিত, হল একগুচ্ছ ব্যাধি যা হার্ট এবং রক্তনালীকে প্রভাবিত করে। এই রোগগুলি সারা বিশ্বে মৃত্যুর প্রধান কারণগুলির মধ্যে একটি। পরিসংখ্যান অনুসারে, প্রতি বছর 17.9 মিলিয়নেরও বেশি মানুষ কার্ডিওভাসকুলার রোগে মারা যায়।

তাই হার্টের সমস্যা গুলো কি কি, কী কারণে হয় এবং কীভাবে চিকিৎসা ও প্রতিরোধ করা যায় তা বোঝা অপরিহার্য। তাই আজ আমরা আলোচনা করবো হার্টের সমস্যার লক্ষণ ও প্রতিকার।

জেনে নিন হার্টের সমস্যার লক্ষণ ও প্রতিকার - হার্টের সমস্যা গুলো কি কি।

হার্টের সমস্যার লক্ষণ

হার্টের সমস্যার লক্ষণগুলি অবস্থার ধরণের উপর নির্ভর করে পরিবর্তিত হয়। কিছু সাধারণ লক্ষণগুলির মধ্যে রয়েছে বুকে ব্যথা, শ্বাসকষ্ট, ক্লান্তি, মাথা ঘোরা, ধড়ফড়, এবং পায়ের গোড়ালিতে ফুলে যাওয়া।

হার্টের সমস্যা শারীরিক এবং মানসিক উভয়ভাবেই একাধিক উপায়ে প্রকাশ পেতে পারে। শারীরিকভাবে কিছু উপসর্গের মধ্যে বুকে ব্যথা, হালকা মাথা, মাথা ঘোরা, নিঃশ্বাসের দুর্বলতা; বমি বমি ভাব বা বমি; বা অনিয়মিত হৃদস্পন্দন।

অন্যান্য লক্ষণগুলির মধ্যে বমি বমি ভাব এবং বমি, ঠান্ডা ঘাম এবং অজ্ঞানতা অন্তর্ভুক্ত থাকতে পারে।

মানসিকভাবে, একজন ব্যক্তি উদ্বেগ বা প্যানিক আক্রমণ, বিষণ্নতা বা মানসিক চাপ অনুভব করতে পারে। যদি এই উপসর্গগুলির মধ্যে কোনটি দেখা দেয়, তাহলে অবিলম্বে চিকিৎসা সেবা নেওয়া গুরুত্বপূর্ণ।

হার্টের সমস্যার কারণ

হার্টের সমস্যার সঠিক কারণ অবস্থার ধরনের উপর নির্ভর করে পরিবর্তিত হয়। হার্টের সমস্যার কিছু সাধারণ কারণ হল:

উচ্চ কোলেস্টেরলের মাত্রা: অতিরিক্ত কোলেস্টেরল ধমনীতে প্লেক তৈরি করতে পারে, যার ফলে ধমনী সংকুচিত হয়ে যায় এবং হার্ট অ্যাটাক এবং স্ট্রোকের ঝুঁকি বেড়ে যায়।

উচ্চ রক্তচাপ: উচ্চ রক্তচাপ রক্তনালীর ক্ষতি করে এবং হার্ট অ্যাটাক ও স্ট্রোকের ঝুঁকি বাড়ায়।

ডায়াবেটিস: ডায়াবেটিস হার্ট অ্যাটাক এবং স্ট্রোকের ঝুঁকি বাড়াতে পারে।

ধূমপান: ধূমপান ধমনীর ক্ষতি করে এবং হার্ট অ্যাটাক ও স্ট্রোকের ঝুঁকি বাড়ায়।

স্থূলতা: অতিরিক্ত ওজন বা স্থূলতা হার্ট অ্যাটাক এবং স্ট্রোকের ঝুঁকি বাড়াতে পারে।

ব্যায়ামের অভাব: পর্যাপ্ত শারীরিক পরিশ্রম না করলে হার্ট অ্যাটাক এবং স্ট্রোকের ঝুঁকি বেশি হতে পারে।

হার্টের সমস্যা গুলো কি কি

হার্টের সমস্যাগুলির সবচেয়ে সাধারণ প্রকারগুলি হল:

করোনারি আর্টারি ডিজিজ: এটি হৃদরোগের সবচেয়ে সাধারণ রূপ এবং এটি হৃৎপিণ্ডে রক্ত সরবরাহকারী ধমনীতে প্লেক জমা হওয়ার কারণে ঘটে। এর ফলে বুকে ব্যথা, হার্ট অ্যাটাক বা হার্ট ফেইলিওর হতে পারে।

হার্ট ফেইলিউর: এটি ঘটে যখন হৃদপিণ্ড শরীরের প্রয়োজন মেটাতে পর্যাপ্ত রক্ত পাম্প করতে অক্ষম হয়। এর ফলে শ্বাসকষ্ট, ক্লান্তি এবং পায়ের গোড়ালিতে ফোলাভাব দেখা দিতে পারে।

আরো পড়ুন : কোন ফল খেলে ওজন কমে

অ্যারিথমিয়া: এটি একটি অস্বাভাবিক হার্টের ছন্দ যার কারণে হৃৎপিণ্ড খুব দ্রুত বা খুব ধীরে স্পন্দিত হতে পারে। এর ফলে মাথা ঘোরা, মাথা ঘোরা এবং অজ্ঞান হয়ে যেতে পারে।

হার্টের ভালভের ত্রুটি: এটি ঘটে যখন হৃৎপিণ্ডের মধ্য দিয়ে রক্ত ​​প্রবাহ নিয়ন্ত্রণকারী চারটি ভালভের মধ্যে একটি সঠিকভাবে কাজ না করে। এটিতে বুকে ব্যথা, শ্বাসকষ্ট এবং ক্লান্তি হতে পারে।

জন্মগত হার্টের ত্রুটি: এটি হৃৎপিণ্ডের গঠনের একটি ত্রুটি যা জন্মের সময় উপস্থিত থাকে। এর ফলে হৃদপিণ্ডের বচসা, শ্বাস নিতে অসুবিধা এবং ক্লান্তি দেখা দিতে পারে।

হার্টের সমস্যা প্রতিকার 

হার্টের সমস্যা প্রতিরোধের সর্বোত্তম উপায় হল আপনার ঝুঁকির কারণগুলি কমাতে জীবনধারা পরিবর্তন করা। এর মধ্যে রয়েছে স্বাস্থ্যকর খাবার খাওয়া, নিয়মিত ব্যায়াম করা, ধূমপান ত্যাগ করা এবং আপনার কোলেস্টেরল এবং রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণ করা।

উপরন্তু, যদি আপনার হৃদরোগের সমস্যাগুলির পারিবারিকগত থাকে, তাহলে প্রতিরোধমূলক ব্যবস্থা সম্পর্কে আপনার ডাক্তারের সাথে কথা বলা গুরুত্বপূর্ণ।

কি খেলে হার্টের রোগ ভালো হয় 

হৃদরোগীদের জন্য একটি খাদ্য পরিকল্পনা তৈরি করা একটি চ্যালেঞ্জিং এবং জটিল কাজ হতে পারে। আপনার হৃদয়-স্বাস্থ্যকর ডায়েটে অন্তর্ভুক্ত করার জন্য এখানে কিছু খাদ্য আইটেম রয়েছে:
  1. ফল এবং শাকসবজি: তাজা ফল এবং শাকসবজি ভিটামিন, খনিজ এবং ফাইবার দিয়ে প্যাক করা হয়। গাঢ় পাতাযুক্ত সবুজ শাক, যেমন পালং শাক এবং কেল, এবং কমলা, আপেল, টমেটো এবং বেল মরিচের মতো উজ্জ্বল রঙের ফল এবং শাকসবজির দিকে মনোযোগ দিন।
  2. গোটা শস্য: গোটা শস্য ফাইবার এবং প্রয়োজনীয় ভিটামিনের একটি বড় উৎস। পুরো শস্যের রুটি, সিরিয়াল এবং পাস্তা বা অন্যান্য খাবার যেমন কুইনোয়া এবং ব্রাউন রাইস দিয়ে তৈরি খাবার বেছে নিন।
  3. স্বাস্থ্যকর চর্বি: স্বাস্থ্যকর চর্বি একটি হৃদয়-সুস্থ খাদ্যের একটি গুরুত্বপূর্ণ অংশ। অলিভ অয়েল, অ্যাভোকাডো, বাদাম এবং বীজের মতো চর্বির স্বাস্থ্যকর উত্সগুলি বেছে নিন।
  4. চর্বিহীন প্রোটিন: চর্বিহীন প্রোটিন উত্স, যেমন মাছ, মুরগি, ডিম এবং মটরশুটি, প্রয়োজনীয় পুষ্টির একটি দুর্দান্ত উত্স এবং আপনাকে পূর্ণ বোধ করতে সাহায্য করতে পারে।
  5. কম চর্বিযুক্ত দুগ্ধজাত: কম চর্বিযুক্ত দুগ্ধজাত পণ্য, যেমন কম চর্বিযুক্ত দই, কম চর্বিযুক্ত কুটির পনির এবং স্কিম মিল্ক গুরুত্বপূর্ণ পুষ্টি সরবরাহ করে এবং অতিরিক্ত প্রোটিন সরবরাহ করতে সহায়তা করতে পারে।

হার্ট ভালো রাখতে কী করা উচিত?

আপনার হার্টকে সুস্থ রাখতে আপনি বেশ কিছু জিনিস করতে পারেন। প্রথমত, আপনার ঝুঁকির কারণগুলি কমাতে জীবনধারা পরিবর্তন করা গুরুত্বপূর্ণ। এর মধ্যে রয়েছে স্বাস্থ্যকর খাবার খাওয়া, নিয়মিত ব্যায়াম করা, ধূমপান ত্যাগ করা এবং আপনার কোলেস্টেরল এবং রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণ করা।

আরো পড়ুন :কোন কোন ফল খেলে ওজন বাড়ে

আরো পড়ুন :কিডনি পরিষ্কার রাখে এমন ১০ টি খাবার

অতিরিক্তভাবে, নিয়মিত চেক-আপ করা, আপনার লক্ষণগুলি নিরীক্ষণ করা এবং আপনার ডাক্তারের দ্বারা নির্ধারিত ওষুধ গ্রহণ করা গুরুত্বপূর্ণ।

হার্টের ব্যথা কোথায় হয়

বেশিরভাগ হার্টের ব্যথা বুকের মাঝখানে বা বাম দিকে অস্বস্তি হয় যা কয়েক মিনিটের বেশি স্থায়ী হয় বা চলে যায়। অস্বস্তি অস্বস্তিকর চাপ, চাপ, পূর্ণতা বা ব্যথার মতো অনুভব হতে পারে।
এটি অন্যান্য জায়গা ছড়িয়ে পড়তে পারে, যেমন হাতের নিচে, ঘাড় বা চোয়ালের মধ্যে। হার্ট অ্যাটাকের সতর্কতা লক্ষণগুলির মধ্যে প্রায়ই বুকে অস্বস্তি থাকে যা কয়েক মিনিটের বেশি স্থায়ী হয় বা আসে এবং যায়।
ব্যথা গুরুতর হলে বা কয়েক মিনিটের বেশি স্থায়ী হলে চিকিৎসা সহায়তা নেওয়া গুরুত্বপূর্ণ, কারণ এটি একটি গুরুতর অবস্থার লক্ষণ হতে পারে।

হার্টের ওজন কত

গড় মানুষের হার্টের ওজন 10 থেকে 12 আউন্স (280 থেকে 340 গ্রাম) এর মধ্যে থাকে। তবে কোনও ব্যক্তির দেহের আকার এবং গঠনের উপর নির্ভর করে হার্টের ওজন কম বেশি হতে পারে।

উদাহরণস্বরূপ, কোনো ব্যক্তি যদি মোটা হয় তাহলে ভারী হার্ট থাকবে, অপর দিকে পাতলা ব্যক্তির হালকা হার্ট থাকবে।

All Bangla News  👉 Tune Status 👈

একজন সুস্থ মানুষের পালস রেট কত থাকে?

গড় ব্যক্তির পালস রেট প্রতি মিনিটে 60-100 বিট। একজন সুস্থ ব্যক্তির হৃদস্পন্দন প্রতি মিনিটে 60 থেকে 100 বিটের মধ্যে হওয়া উচিত। তবে এই সংখ্যাটি কোনও ব্যক্তির বয়স, ফিটনেস স্তর এবং অন্যান্য কারণের উপর নির্ভর করে পরিবর্তিত হতে পারে।

উপসংহার

উপরের আলোচ্য বিষয় হলো হার্টের সমস্যার লক্ষণ ও প্রতিকার একটি গুরুতর বিষয় এবং এটি হালকাভাবে নেওয়া উচিত নয়। আপনি যদি মনে করেন যে আপনি হার্টের সমস্যায় ভুগছেন তবে যত তাড়াতাড়ি সম্ভব একজন ডাক্তারের সাথে দেখা গুরুত্বপূর্ণ। হার্টের সমস্যার জন্য অনেকগুলি বিভিন্ন চিকিত্সা উপলব্ধ রয়েছে এবং আপনি যত তাড়াতাড়ি চিকিত্সা শুরু করবেন, আপনার পুনরুদ্ধারের সম্ভাবনা তত ভাল।

FAQs: হার্টের সমস্যা সম্পর্কে প্রায়শই জিজ্ঞাসিত প্রশ্ন

প্রশ্ন: হার্টের সবচেয়ে সাধারণ সমস্যা কী? 

উত্তর: হার্টের সবচেয়ে সাধারণ সমস্যা হল করোনারি আর্টারি ডিজিজ। এটি হৃৎপিণ্ডে রক্ত সরবরাহকারী ধমনীতে প্লেক তৈরির কারণে ঘটে।

প্রশ্ন : হার্টের সমস্যার লক্ষণগুলো কী কী? 

উত্তর: হার্টের সমস্যার লক্ষণগুলি অবস্থার ধরণের উপর নির্ভর করে পরিবর্তিত হয়, তবে কিছু সাধারণ লক্ষণগুলির মধ্যে রয়েছে বুকে ব্যথা, শ্বাসকষ্ট, ক্লান্তি, মাথা ঘোরা, ধড়ফড় করা এবং পায়ের গোড়ালিতে ফুলে যাওয়া।

প্রশ্ন: হার্টের সমস্যা কীভাবে চিকিত্সা করা হয়? 

উত্তর: হার্টের সমস্যার চিকিৎসা নির্ভর করে অবস্থার ধরন এবং তীব্রতার ওপর। সাধারণভাবে, ওষুধগুলি হৃৎপিণ্ডের আরও ক্ষতির ঝুঁকি কমাতে এবং লক্ষণগুলি নিয়ন্ত্রণ করতে ব্যবহৃত হয়। কিছু ক্ষেত্রে, ক্ষতিগ্রস্থ হার্টের ভালভ মেরামত বা প্রতিস্থাপন করতে বা জন্মগত হার্টের ত্রুটির চিকিত্সার জন্য অস্ত্রোপচারের প্রয়োজন হতে পারে।

প্রশ্ন: আমি কীভাবে হার্টের সমস্যা প্রতিরোধ করতে পারি? 

উত্তর: হার্টের সমস্যা প্রতিরোধের সর্বোত্তম উপায় হল আপনার ঝুঁকির কারণগুলি কমাতে জীবনধারা পরিবর্তন করা। এর মধ্যে রয়েছে স্বাস্থ্যকর খাবার খাওয়া, নিয়মিত ব্যায়াম করা, ধূমপান ত্যাগ করা এবং আপনার কোলেস্টেরল এবং রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণ করা। উপরন্তু, যদি আপনার হৃদরোগের সমস্যাগুলির পারিবারিক ইতিহাস থাকে, তাহলে প্রতিরোধমূলক ব্যবস্থা সম্পর্কে আপনার ডাক্তারের সাথে কথা বলা গুরুত্বপূর্ণ।

Leave a Comment