প্রাকৃতিকভাবে গ্যাস্ট্রিক দূর করার উপায়। – গ্যাস্ট্রিক এর লক্ষণ কি?

Update:

[post-views]

গ্যাস্ট্রিক এমন একটি সমস্যা যা পাকস্থলীকে প্রভাবিত করে করে। এটা ধূমপান, অস্বাস্থ্যকর খাবার খাওয়া এবং মানসিক চাপ সহ অসংখ্য কারণের হতে পারে। গ্যাস্ট্রিক দূর করার অনেক উপায় রয়েছে।

আজ আমরা আলোচনা করবো, প্রাকৃতিকভাবে গ্যাস্ট্রিক দূর করার উপায় নিয়ে। গ্যাস্ট্রিক থেকে মুক্তি পাওয়ার কয়েকটি কার্যকর উপায় নিয়ে আলোচনা করবো। কীভাবে আপনার গ্যাস্ট্রিকের লক্ষণগুলি প্রাকৃতিকভাবে পরিচালনা করবেন এবং আপনার সামগ্রিক হজম স্বাস্থ্যের উন্নতি করবেন সে সম্পর্কে ভাল ধারণা থাকবে।

প্রাকৃতিকভাবে গ্যাস্ট্রিক দূর করার উপায়। - গ্যাস্ট্রিক এর লক্ষণ কি?
Contents hide

গ্যাস্ট্রিক এর লক্ষণ কি?

গ্যাস্ট্রিক সমস্যার অনেক গুলো লক্ষণ রয়েছে। সবচেয়ে সাধারণ লক্ষণ গিুলো হলো খাওয়ার পর পূর্ণতা অনুভব করা। অন্যান্য লক্ষণগুলির মধ্যে বমি বমি ভাব, বমি, পেটে ব্যথা এবং ডায়রিয়া অন্তর্ভুক্ত থাকতে পারে। কিছু লোকের এই সমস্ত লক্ষণগুলি অনুভব নাও করতে পারেন 

গ্যাস্ট্রিকের লক্ষণগুলি গ্যাস্ট্রিক সমস্যা সৃষ্টিকারী অন্তর্নিহিত অবস্থার উপর নির্ভর করে পরিবর্তিত হতে পারে। যাইহোক, গ্যাস্ট্রিক সমস্যার কিছু সাধারণ লক্ষণগুলির মধ্যে রয়েছে:

  • পেটে ব্যথা বা অস্বস্তি
  • ফোলা
  • বমি বমি ভাব এবং বমি
  • ক্ষুধামান্দ্য
  • দ্রুত পূর্ণ অনুভব করা
  • অম্বল বা অ্যাসিড রিফ্লাক্স
  • বদহজম
  • ডায়রিয়া বা কোষ্ঠকাঠিন্য
  • ক্লান্তি বা দুর্বলতা
  • ওজন হ্রাস বা বৃদ্ধি
  • গিলতে অসুবিধা হওয়া বা আপনার গলায় কিছু আটকে আছে বলে অনুভব করা

আপনি যদি এই উপসর্গগুলির মধ্যে কোনটি অনুভব করেন তবে আপনার গ্যাস্ট্রিক সমস্যার রয়েছে। আপনি যদি ক্রমাগত বা গুরুতর এই লক্ষণগুলি অনুভব করেন, বিশেষ করে যদি সেগুলির সাথে শ্বাস নিতে অসুবিধা হয়, বুকে ব্যথা হয় বা তীব্র পেটে ব্যথা হয় তবে ডাক্তারের পরামর্শ নেওয়া গুরুত্বপূর্ণ।

প্রাকৃতিকভাবে গ্যাস্ট্রিক দূর করার উপায়।

গ্যাস্ট্রিক সমস্যাগুলি অনেক লোকের জন্য একটি বড় সমস্যা হতে পারে, যা অস্বস্তি, ব্যথা এবং এমনকি আরও গুরুতর স্বাস্থ্য সমস্যা সৃষ্টি করে।

গ্যাস্ট্রিক একটি সাধারণ অবস্থা যা পেটে অস্বস্তি এবং ব্যথা সৃষ্টি করতে পারে। যদিও বেশ কয়েকটি প্রাকৃতিক প্রতিকার রয়েছে যা  নিরাময়  করতে সহায়তা করতে পারে। প্রাকৃতিকভাবে গ্যাস্ট্রাইটিস থেকে মুক্তি পাওয়ার কার্যকর উপায় হলো-

সারাদিনে ছোট ছোট খাবার খান

সারাদিনে ছোট, বেশি ঘন ঘন খাবার খাওয়া হজম এবং পেটে চাপ কমিয়ে গ্যাস্ট্রিকের লক্ষণগুলি কমাতে সাহায্য করতে পারে। ছোট খাবার খাওয়ার আরেকটি সুবিধা হল এটি আপনার রক্তে শর্করার মাত্রা নিয়ন্ত্রণ করতে সাহায্য করে।

দিনে তিন বেলা বড় খাবারের পরিবর্তে, সারা দিনে আরও ঘন ঘন ছোট খাবার খাওয়ার চেষ্টা করুন। এটি এক সময়ে আপনার পেটে খাবারের পরিমাণ কমাতে সাহায্য করতে পারে, যা গ্যাস্ট্রিকের লক্ষণগুলি প্রতিরোধ করতে পারে।

আপনার খাবার ভালো করে চিবিয়ে নিন গিলে ফেলার আগে আপনার খাবার ভালো করে চিবানোর জন্য সময় নিন। এটি হজমে সহায়তা করতে পারে এবং আপনার পেটকে অতিরিক্ত বোঝা প্রতিরোধ করতে পারে।

ট্রিগার খাবার এড়িয়ে চলুন

কিছু খাবার গ্যাস্ট্রিকের উপসর্গ বাড়িয়ে দিতে পারে, যার মধ্যে রয়েছে মশলাদার এবং চর্বিযুক্ত খাবার, ক্যাফেইন, অ্যালকোহল এবং অ্যাসিডিক খাবার। আপনার উপসর্গের কারণ হতে পারে এমন ট্রিগার খাবার সনাক্ত করুন এবং এড়িয়ে চলুন। একবার আপনি ট্রিগার খাবার শনাক্ত করলে, আপনার খাদ্য থেকে সেগুলো বাদ দেওয়ার চেষ্টা করুন। 

গ্যাস্ট্রিক ট্রিগার খাবারগুলি হল সেইগুলি যা পেটে অস্বস্তি, ফোলাভাব এবং গ্যাস সৃষ্টি করে। এই খাবারগুলি হজম ব্যবস্থায় ভারসাম্যহীনতা তৈরি করতে পারে যার ফলে বিভিন্ন স্বাস্থ্য সমস্যা দেখা দেয়

এখানে কিছু সাধারণ ট্রিগার খাবার রয়েছে:

মশলাদার খাবার: এগুলি পেটের আস্তরণে জ্বালাতন করতে পারে এবং অম্বল, অ্যাসিড রিফ্লাক্স এবং বদহজম হতে পারে।

চর্বিযুক্ত এবং ভাজা খাবার: উচ্চ চর্বিযুক্ত খাবার হজমকে ধীর করে দিতে পারে এবং ফোলাভাব, গ্যাস এবং অস্বস্তি সৃষ্টি করতে পারে।

সাইট্রাস ফল: কমলালেবু, লেবু এবং আঙ্গুরের মতো সাইট্রাস ফল অ্যাসিডিক এবং পেটের আস্তরণে জ্বালাতন করতে পারে, যার ফলে অম্বল এবং বদহজম হয়।

কার্বনেটেড পানীয়: সোডা এবং বিয়ারের মতো কার্বনেটেড পানীয় ফুলে যাওয়া এবং গ্যাসের কারণ হতে পারে।

পেঁয়াজ এবং রসুন: এই খাবারগুলিতে উচ্চ মাত্রার গাঁজনযোগ্য ফাইবার রয়েছে যা গ্যাস, ফোলাভাব এবং অস্বস্তি সৃষ্টি করতে পারে।

মনে রাখবেন যে ট্রিগার খাবারগুলি ব্যক্তি থেকে ব্যক্তিতে পরিবর্তিত হতে পারে, তাই কোন খাবারগুলি বিশেষভাবে আপনার লক্ষণগুলিকে ট্রিগার করে তা সনাক্ত করতে একটি খাদ্য ডায়েরি রাখা গুরুত্বপূর্ণ।

হাইড্রেটেড থাকুন

প্রচুর পানি এবং অন্যান্য নন-ক্যাফিনযুক্ত পানীয় পান করা আপনার পাচনতন্ত্রকে সঠিকভাবে কাজ করতে এবং কোষ্ঠকাঠিন্যের ঝুঁকি কমাতে সাহায্য করতে পারে। সারা দিন প্রচুর পরিমাণে জল পান করুন, যা গ্যাস্ট্রিক লক্ষণগুলিতে অবদান রাখতে পারে।

পর্যাপ্ত পানি পান করা আপনাকে হাইড্রেটেড রাখতে সাহায্য করতে পারে, যা হজমে সাহায্য করতে পারে এবং কোষ্ঠকাঠিন্য প্রতিরোধ করতে পারে। কোষ্ঠকাঠিন্যের কারণে পেটে ব্যথা এবং অস্বস্তি হতে পারে।

পানীয় জল আপনার শরীর থেকে বিষাক্ত পদার্থগুলিকে বের করে দিতে সাহায্য করতে পারে, যা গ্যাস্ট্রিকের লক্ষণগুলিতে অবদান রাখতে পারে।

মনে রাখবেন, যদি আপনি গুরুতর গ্যাস্ট্রিক উপসর্গের সম্মুখীন হন, তবে পানীয় জল তাদের উপশম করার জন্য যথেষ্ট নাও হতে পারে।

নিয়মিত ব্যায়াম করুন

ব্যায়াম শুধুমাত্র সামগ্রিক শারীরিক স্বাস্থ্য বজায় রাখার জন্যই নয়, এটি পাচনতন্ত্রেও গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। ব্যায়ামের উল্লেখযোগ্য সুবিধাগুলির মধ্যে একটি হল গ্যাস্ট্রিক খালি করতে সহায়তা করে । গ্যাস্ট্রিক খালি করা হল এমন একটি প্রক্রিয়া যার মাধ্যমে খাদ্য এবং তরলগুলি পাকস্থলী থেকে ছোট অন্ত্রে খালি করা হয় যাতে সেগুলি সঠিকভাবে হজম হতে পারে।

বিভিন্ন উপায় আছে যার মাধ্যমে ব্যায়াম গ্যাস্ট্রিকের অস্বস্তি দূর করতে সাহায্য করে।

প্রথমত, জগিং বা দৌড়ানোর মতো ব্যায়ামগুলি পেটের পেশীগুলির সংকোচনকে উদ্দীপিত করতে সাহায্য করে, দ্রুত হজম এবং এর মাধ্যমে খাবারের চলাচলকে উৎসাহিত করে। 

দ্বিতীয়ত, যোগব্যায়ামের মতো স্ট্রেচিং ব্যায়াম পেরিস্টালসিসকে উদ্দীপিত করে, যা অন্ত্রের চলাচলকে উৎসাহিত করে এবং কোষ্ঠকাঠিন্যের সমস্যা দূর করে; এটি আটকে থাকা গ্যাসের কারণে ফোলাভাব এবং ক্র্যাম্পিং কমাতে পারে। 

তৃতীয়ত, নিয়মিত ব্যায়াম অন্ত্রের অঞ্চলে রক্ত সঞ্চালনকে উন্নত করে, বদহজমের কারণে সৃষ্ট প্রদাহ কমিয়ে সর্বোত্তম পুষ্টি শোষণ নিশ্চিত করে।

ধূমপান ত্যাগ করুন

ধূমপান পেটের আস্তরণে জ্বালাতন করতে পারে এবং গ্যাস্ট্রিক অবস্থার বিকাশের ঝুঁকি বাড়ায়, তাই ধূমপান ত্যাগ করা হজম স্বাস্থ্য এবং সামগ্রিক স্বাস্থ্য উভয়ের জন্যই গুরুত্বপূর্ণ।

ধূমপান হজমকে ধীর করে দিতে পারে এবং কোষ্ঠকাঠিন্যে অবদান রাখতে পারে। ধূমপান ত্যাগ করা হজমের উন্নতি করতে এবং এই লক্ষণগুলি প্রতিরোধ করতে সাহায্য করতে পারে।

ধূমপান নিম্ন খাদ্যনালীর স্ফিঙ্কটারকে দুর্বল করে দিতে পারে, পাকস্থলীর অ্যাসিড খাদ্যনালীতে প্রবাহিত হতে দেয়, যার ফলে অম্বল এবং অ্যাসিড রিফ্লাক্স হয়।

ধূমপান পাকস্থলীর অ্যাসিডের উৎপাদন বাড়াতে পারে, যা পাকস্থলীর আস্তরণের ক্ষতি করতে পারে এবং পেপটিক আলসারের বিকাশে অবদান রাখতে পারে।

আদা

আদার প্রাকৃতিক অ্যান্টি-ইনফ্লেমেটরি বৈশিষ্ট্য রয়েছে যা পাচনতন্ত্রকে প্রশমিত করতে এবং গ্যাস্ট্রিকের উপসর্গগুলি উপশম করতে সাহায্য করতে পারে। আপনি আপনার খাবারে তাজা আদা যোগ করতে পারেন বা কয়েক মিনিটের জন্য গরম জলে তাজা আদা ভিজিয়ে আদা চা তৈরি করতে পারেন।

আদার মধ্যে জিঞ্জেরল এবং শোগাওল নামক যৌগ রয়েছে, যার প্রাকৃতিক প্রদাহ বিরোধী বৈশিষ্ট্য রয়েছে। এই যৌগগুলি পাচনতন্ত্রকে প্রশমিত করতে এবং গ্যাস্ট্রিক উপসর্গগুলির সাথে যুক্ত প্রদাহ উপশম করতে সাহায্য করতে পারে।

আরো পড়ুন: ব্যায়াম ছাড়াই পেটের মেদ কমানোর প্রাকৃতিক উপায়।

আরো পড়ুন: মানসিক রোগের শারীরিক লক্ষণ

আদা গ্যাস্ট্রোইনটেস্টাইনাল ট্র্যাক্টের সংকোচন বাড়িয়ে এবং হজম রসের নিঃসরণকে উদ্দীপিত করে হজমের উন্নতি করতে সাহায্য করতে পারে। এটি পাচনতন্ত্রের মাধ্যমে খাবারকে আরও দ্রুত সরাতে সাহায্য করতে পারে এবং বদহজম এবং ফোলা লক্ষণগুলি দূর করতে পারে।

নির্ধারিত হিসাবে ঔষধ গ্রহণ করুন

আপনার স্বাস্থ্যসেবা প্রদানকারী আপনার গ্যাস্ট্রিক উপসর্গগুলি চিকিত্সা করার জন্য ঔষধ নির্ধারণ করে থাকলে, নির্দেশিত হিসাবে এটি গ্রহণ করতে ভুলবেন না এবং তাদের দেওয়া যেকোনো জীবনধারার সুপারিশ অনুসরণ করুন।

মনে রাখবেন, কোনও ঘরোয়া প্রতিকার চেষ্টা করার আগে একজন স্বাস্থ্যসেবা ডাক্তারের সাথে কথা বলা গুরুত্বপূর্ণ, বিশেষ করে যদি আপনি গুরুতর বা ক্রমাগত গ্যাস্ট্রিক লক্ষণগুলি অনুভব করেন। বাড়ির প্রতিকার সবার জন্য উপযুক্ত বা কার্যকর নাও হতে পারে এবং কিছু ওষুধ বা স্বাস্থ্যের অবস্থার সাথে মানানসই নাও করতে পারে।

গ্যাস্ট্রিক বুকে ব্যাথা দূর করার উপায়

ওভার-দ্য-কাউন্টার অ্যান্টাসিড: অ্যান্টাসিডগুলি পাকস্থলীর অ্যাসিড নিরপেক্ষ করতে সাহায্য করতে পারে এবং অম্বল এবং বুকের ব্যথা থেকে মুক্তি দিতে পারে। এগুলি বেশিরভাগ ওষুধের দোকানে ওভার-দ্য-কাউন্টারে পাওয়া যায়।

কিছু খাবার এবং পানীয় গ্যাস্ট্রিকের লক্ষণ এবং বুকে ব্যথা বাড়িয়ে তুলতে পারে। মশলাদার বা চর্বিযুক্ত খাবার, ক্যাফিন এবং অ্যালকোহল জাতীয় ট্রিগার খাবারগুলি এড়িয়ে চললে লক্ষণগুলি উপশম করতে সহায়তা করতে পারে।

খাওয়ার পরে শুয়ে থাকা এড়িয়ে চলুন খাওয়ার পরে শুয়ে পড়লে বুকে ব্যথা এবং অন্যান্য গ্যাস্ট্রিক লক্ষণগুলি আরও খারাপ হতে পারে। শোয়ার আগে খাওয়ার পর অন্তত দুই থেকে তিন ঘণ্টা অপেক্ষা করাই ভালো।

আপনার বিছানার মাথাটি উঁচু করুন আপনার বিছানার মাথাটি কয়েক ইঞ্চি উঁচু করা পেটের অ্যাসিডকে খাদ্যনালীতে প্রবাহিত হতে এবং বুকে ব্যথা হতে বাধা দিতে সহায়তা করে।

মনে রাখবেন, কোনও নতুন প্রতিকার চেষ্টা করার আগে বা আপনার খাদ্য বা জীবনধারায় উল্লেখযোগ্য পরিবর্তন করার আগে একজন স্বাস্থ্যসেবা পেশাদারের সাথে কথা বলা গুরুত্বপূর্ণ, বিশেষ করে যদি আপনি গুরুতর বা অবিরাম বুকে ব্যথা বা অন্যান্য গ্যাস্ট্রিক লক্ষণগুলির সম্মুখীন হন।

গ্যাস্ট্রিক হলে কি কি সমস্যা হয় ?

গ্যাস্ট্রিক সমস্যাগুলি হজমের ব্যাধিগুলির একটি পরিসরকে বোঝায় যা পেট এবং/অথবা অন্ত্রকে প্রভাবিত করতে পারে। এই সমস্যাগুলি বিভিন্ন উপসর্গের কারণ হতে পারে।

গ্যাস্ট্রিক, সাধারণত অ্যাসিডিটি নামে পরিচিত, একটি সাধারণ হজম সমস্যা। এটি ঘটে যখন পেট অত্যধিক পরিমাণে অ্যাসিড তৈরি করে, যা পেটের উপরের অংশে অস্বস্তি এবং ব্যথার দিকে পরিচালিত করে। খাদ্য, জীবনযাত্রার অভ্যাস, মানসিক চাপ, ওষুধ এবং অন্তর্নিহিত চিকিৎসা অবস্থার মতো বিভিন্ন কারণের কারণে গ্যাস্ট্রিক হতে পারে।

গ্যাস্ট্রিকের লক্ষণগুলির মধ্যে রয়েছে বুকে বা গলায় জ্বালাপোড়া, ফোলাভাব, বেলচিং এবং বমি বমি ভাব। যদিও এই লক্ষণগুলি কিছু লোকের জন্য হালকা হতে পারে, তবে এগুলি অন্যদের জন্য গুরুতর এবং দুর্বল হতে পারে। আরো রয়েছে:

অম্বল এবং অ্যাসিড রিফ্লাক্স: এগুলি ঘটে যখন পেটের অ্যাসিড খাদ্যনালীতে প্রবাহিত হয়, যার ফলে বুকে এবং গলায় জ্বালাপোড়া হয়।

পেটে ব্যথা এবং ফোলাভাব: এই লক্ষণগুলি গ্যাস, কোষ্ঠকাঠিন্য বা পরিপাকতন্ত্রের প্রদাহ সহ বিভিন্ন কারণের কারণে হতে পারে।

বমি বমি ভাব এবং বমি: এই লক্ষণগুলি বিভিন্ন কারণের কারণে হতে পারে, যার মধ্যে সংক্রমণ, খাদ্যে বিষক্রিয়া বা ওষুধের পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া রয়েছে।

ডায়রিয়া বা কোষ্ঠকাঠিন্য: এই উপসর্গগুলি বিভিন্ন কারণের কারণে হতে পারে, যার মধ্যে রয়েছে স্ট্রেস, ডায়েট, ওষুধ বা অন্তর্নিহিত চিকিৎসা অবস্থা।

গ্যাস্ট্রোপেরেসিস: এই অবস্থাটি ঘটে যখন পেট তার বিষয়বস্তু খালি করতে স্বাভাবিকের চেয়ে বেশি সময় নেয়, যার ফলে বমি বমি ভাব, ফোলাভাব এবং পেটে ব্যথা হয়।

পেপটিক আলসার: এগুলি হল ঘা যা পাকস্থলীর বা ডুডেনামের আস্তরণে বিকশিত হয়, যার ফলে পেটে ব্যথা, ফোলাভাব এবং বমি বমি ভাব হয়।

প্রদাহজনক অন্ত্রের রোগ: এটি এমন একদল ব্যাধি যা পরিপাকতন্ত্রে প্রদাহ সৃষ্টি করে, যার ফলে পেটে ব্যথা, ডায়রিয়া এবং ওজন হ্রাসের মতো উপসর্গ দেখা দেয়।

গ্যাস্ট্রোইনটেস্টাইনাল ক্যান্সার: এটি দীর্ঘমেয়াদী গ্যাস্ট্রিক সমস্যার একটি বিরল কিন্তু গুরুতর জটিলতা, যা পেটে ব্যথা, ওজন হ্রাস এবং মলে রক্তের মতো উপসর্গ সৃষ্টি করতে পারে।

আপনি যদি এই উপসর্গগুলির মধ্যে কোনটি অনুভব করেন তবে সঠিক নির্ণয় এবং উপযুক্ত চিকিত্সার জন্য একজন স্বাস্থ্যসেবা পেশাদারের সাথে কথা বলা গুরুত্বপূর্ণ।

গ্যাস্ট্রিক হলে কি কি খাওয়া যাবে না?

গ্যাস্ট্রিক আক্রান্ত হওয়ার সময়, এমন কিছু খাবার এড়ানো অপরিহার্য যা পরিস্থিতি আরও খারাপ করতে পারে। আপনি যদি গ্যাস্ট্রিকের উপসর্গগুলি অনুভব করেন তবে কিছু খাবার এবং পানীয় রয়েছে যা আপনার লক্ষণগুলিকে বাড়িয়ে তুলতে পারে এবং এড়িয়ে যাওয়া উচিত। এর মধ্যে রয়েছে:

মশলাদার খাবার

মরিচের গুঁড়া, গোলমরিচ এবং গরম সসের মতো মশলা পেটের আস্তরণকে জ্বালাতন করতে পারে এবং অম্বল এবং অ্যাসিড রিফ্লাক্সের মতো লক্ষণগুলিকে আরও খারাপ করতে পারে।

চর্বিযুক্ত এবং ভাজা খাবার

উচ্চ চর্বিযুক্ত খাবার হজমকে ধীর করে দিতে পারে এবং ফোলাভাব, গ্যাস এবং অস্বস্তি সৃষ্টি করতে পারে।

সাইট্রাস ফল

কমলালেবু, লেবু এবং আঙ্গুরের মতো সাইট্রাস ফল অ্যাসিডিক এবং পেটের আস্তরণে জ্বালাতন করতে পারে, যার ফলে অম্বল এবং বদহজম হয়।

চকোলেট

চকোলেটে ক্যাফেইন থাকে এবং এটি নিম্ন খাদ্যনালীর স্ফিঙ্কটারকে শিথিল করতে পারে, যা পেটের অ্যাসিডকে খাদ্যনালীতে ফিরে যেতে দেয়, যার ফলে অম্বল এবং অ্যাসিড রিফ্লাক্স হয়।

কার্বনেটেড পানীয়

সোডা এবং বিয়ারের মতো কার্বনেটেড পানীয় ফুলে যাওয়া এবং গ্যাসের কারণ হতে পারে।

পেঁয়াজ এবং রসুন

এই খাবারগুলিতে উচ্চ মাত্রার গাঁজনযোগ্য ফাইবার রয়েছে যা গ্যাস, ফোলাভাব এবং অস্বস্তি সৃষ্টি করতে পারে।

দুগ্ধজাত পণ্য

কিছু লোক ল্যাকটোজ অসহিষ্ণু, যার অর্থ তাদের ল্যাকটোজ হজম করতে অসুবিধা হয়, দুধ এবং দুগ্ধজাত দ্রব্যে পাওয়া চিনি। এর ফলে ফোলাভাব, গ্যাস এবং ডায়রিয়া হতে পারে।

মনে রাখবেন, ট্রিগার খাবারগুলি ব্যক্তি থেকে ব্যক্তিতে পরিবর্তিত হতে পারে, তাই কোন খাবারগুলি বিশেষভাবে আপনার লক্ষণগুলিকে ট্রিগার করে তা সনাক্ত করতে একটি খাদ্য ডায়েরি রাখা গুরুত্বপূর্ণ। 

সাধারণভাবে, ছোট, আরও ঘন ঘন খাবার খাওয়া। ব্যক্তিগত পরামর্শ এবং চিকিত্সার জন্য একজন স্বাস্থ্যসেবা ডাক্তারের বা নিবন্ধিত খাদ্য বিশেষজ্ঞের সাথে কথা বলা গুরুত্বপূর্ণ।

গ্যাস্ট্রিকের ব্যথা কোথায় কোথায় হয়?

পেটের উপরের অংশে গ্যাস্ট্রিক ব্যথা হতে পারে, যা বুক এবং পেটের বোতামের মধ্যবর্তী স্থান। এই অঞ্চলে পাকস্থলী, যকৃত, অগ্ন্যাশয় এবং অন্ত্র সহ হজমের সাথে জড়িত বেশ কয়েকটি অঙ্গ রয়েছে। অন্তর্নিহিত কারণের উপর নির্ভর করে ব্যথার অবস্থান এবং ধরন পরিবর্তিত হতে পারে।

হার্টবার্ন এবং অ্যাসিড রিফ্লাক্স, উদাহরণস্বরূপ, সাধারণত উপরের পেটে বা বুকে জ্বলন্ত সংবেদন সৃষ্টি করে, যা হার্ট অ্যাটাকের জন্য ভুল হতে পারে। অন্যদিকে, গ্যাস্ট্রোপেরেসিস পূর্ণতা অনুভব করতে পারে বা উপরের পেটে ফোলাভাব হতে পারে, এর সাথে বমি বমি ভাব এবং বমিও হতে পারে।

 পেপটিক আলসার উপরের পেটে একটি নিস্তেজ, কুঁচকে যাওয়া ব্যথার কারণ হতে পারে যা পেট খালি হলে বা রাতে আরও খারাপ হতে পারে।

এটা মনে রাখা গুরুত্বপূর্ণ যে গ্যাস্ট্রিক ব্যথা শরীরের অন্যান্য অংশে উল্লেখ করা যেতে পারে, যার মধ্যে পিঠ, বুক এবং কাঁধও রয়েছে। আপনি যদি অবিরাম বা গুরুতর পেটে ব্যথা বা অস্বস্তির সম্মুখীন হন, তাহলে সঠিক রোগ নির্ণয় এবং উপযুক্ত চিকিৎসার জন্য একজন স্বাস্থ্যসেবা পেশাদারের সাথে কথা বলা গুরুত্বপূর্ণ।

গ্যাস্ট্রিকের ওষুধ বেশি খেলে কী হয়?

অত্যধিক গ্যাস্ট্রিক ঔষধ গ্রহণ, বিশেষ করে একটি বর্ধিত সময়ের জন্য, আপনার স্বাস্থ্যের উপর বিভিন্ন নেতিবাচক প্রভাব ফেলতে পারে। অত্যধিক গ্যাস্ট্রিক ওষুধ গ্রহণের কিছু সম্ভাব্য পরিণতি এখানে রয়েছে:

প্রোটন পাম্প ইনহিবিটর (পিপিআই) সহ কিছু ধরণের গ্যাস্ট্রিক ওষুধ কিডনির ক্ষতি করতে পারে, বিশেষ করে যখন উচ্চ মাত্রায় বা দীর্ঘ সময়ের জন্য গ্রহণ করা হয়।

গ্যাস্ট্রিকের ওষুধ, বিশেষ করে পিপিআই, কিছু সংক্রমণের ঝুঁকি বাড়াতে পারে, যেমন নিউমোনিয়া, ক্লোস্ট্রিডিয়াম ডিফিসিল ইনফেকশন এবং হাড় ভেঙে যাওয়া।

গ্যাস্ট্রিক ওষুধের দীর্ঘায়িত ব্যবহার নির্দিষ্ট ভিটামিন এবং খনিজ শোষণে হস্তক্ষেপ করতে পারে, যার ফলে সময়ের সাথে সাথে পুষ্টির ঘাটতি দেখা দেয়।

কিছু গবেষণায় পরামর্শ দেওয়া হয়েছে যে গ্যাস্ট্রিক ওষুধের দীর্ঘায়িত ব্যবহার, বিশেষ করে পিপিআই, কার্ডিওভাসকুলার রোগের ঝুঁকি বাড়াতে পারে।

অত্যধিক গ্যাস্ট্রিক ওষুধ গ্রহণ সময়ের সাথে সাথে এর কার্যকারিতা হ্রাস করতে পারে, কারণ শরীর ওষুধের প্রতি সহনশীলতা বিকাশ করতে পারে।

একজন স্বাস্থ্যসেবা পেশাদারের দ্বারা নির্ধারিত গ্যাস্ট্রিক ওষুধ গ্রহণ করা এবং তাদের সাথে কোনো উদ্বেগ বা পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া নিয়ে আলোচনা করা গুরুত্বপূর্ণ। দীর্ঘমেয়াদী ওষুধ ব্যবহারের প্রয়োজনীয়তা কমাতে গ্যাস্ট্রিক উপসর্গগুলির অন্তর্নিহিত কারণকে মোকাবেলা করা এবং খাদ্যাভ্যাস পরিবর্তনের মতো জীবনধারা পরিবর্তন করাও গুরুত্বপূর্ণ।

READ MORE All Health Tips  👉 Tune Status 👈

শেষ কথা

উপসংহারে, গ্যাস্ট্রাইটিস একটি বেদনাদায়ক এবং অস্বস্তিকর অবস্থা হতে পারে, তবে বেশ কিছু প্রাকৃতিক প্রতিকার এবং জীবনযাত্রার পরিবর্তন রয়েছে যা উপসর্গগুলি উপশম করতে ব্যবহার করা যেতে পারে। নিরাপদ এবং কার্যকরী তা নিশ্চিত করার জন্য কোনো নতুন প্রতিকার বা ওষুধ চেষ্টা করার আগে একজন ডাক্তারের সাথে পরামর্শ করা গুরুত্বপূর্ণ।

FAQs

কলা খেলে কি গ্যাস্ট্রিক হয়?

কলাকে সাধারণত কম অ্যাসিডিক খাবার হিসাবে বিবেচনা করা হয়, যার মানে হল সাইট্রাস ফল, টমেটো এবং ভিনেগারের মতো উচ্চ-অম্লযুক্ত খাবারের তুলনায় তাদের গ্যাস্ট্রিক সমস্যা হওয়ার সম্ভাবনা কম। প্রকৃতপক্ষে, কলা তাদের প্রাকৃতিক অ্যান্টাসিড বৈশিষ্ট্যগুলির কারণে গ্যাস্ট্রিক উপসর্গগুলি উপশম করতে সাহায্য করতে পারে। অতিরিক্ত পাকা কলায় উচ্চ মাত্রায় গাঁজনযোগ্য শর্করা থাকে, যা কিছু লোকের মধ্যে গ্যাস এবং ফোলাভাব সৃষ্টি করতে পারে।

গর্ভাবস্থায় গ্যাস্ট্রিকের ঔষধ খাওয়া যাবে কি

গর্ভাবস্থায় কিছু ধরণের গ্যাস্ট্রিকের ওষুধ খাওয়া যেতে পারে, তবে কোনও ওষুধ খাওয়ার আগে একজন স্বাস্থ্যসেবা পেশাদারের সাথে কথা বলা গুরুত্বপূর্ণ, কারণ কিছু ওষুধ বিকাশমান ভ্রূণের জন্য ক্ষতিকারক হতে পারে। রেনিটিডিনের মতো অ্যান্টাসিড এবং H2 রিসেপ্টর প্রতিপক্ষকে সাধারণত গর্ভাবস্থায় ব্যবহারের জন্য নিরাপদ বলে মনে করা হয়, তবে ওমেপ্রাজলের মতো প্রোটন পাম্প ইনহিবিটর (পিপিআই) সতর্কতার সাথে এবং শুধুমাত্র একজন স্বাস্থ্যসেবা পেশাদারের নির্দেশনায় ব্যবহার করা উচিত।

গ্যাস্ট্রিক আলসার কেন হয়?

গ্যাস্ট্রিক আলসারগুলি হেলিকোব্যাক্টর পাইলোরি ব্যাকটেরিয়ার সংক্রমণ, ননস্টেরয়েডাল অ্যান্টি-ইনফ্ল্যামেটরি ড্রাগস (NSAIDs), অত্যধিক অ্যালকোহল সেবন, ধূমপান, মানসিক চাপ এবং জেনেটিক প্রবণতার মতো কারণগুলির কারণে ঘটে।

গ্যাস্ট্রিকের জন্য কিছু প্রাকৃতিক প্রতিকার ?

আদা, আপেল সিডার ভিনেগার, মধু, ঘৃতকুমারী এবং লিকোরিস রুট হল সমস্ত প্রাকৃতিক প্রতিকার যা গ্যাস্ট্রাইটিস পরিচালনায় সহায়ক হতে পারে।

Hi, I'm SA Amin. I am a freelance health and fitness writer.

Leave a Comment