কি খেলে থাইরয়েড ভালো হয় – থাইরয়েড রোগীর খাবার তালিকা

Update:

[post-views]

কি খেলে থাইরয়েড ভালো হয়- আপনি যদি থাইরয়েড রোগে ভুগে থাকেন তাহলে আপনার ডায়েটে পরিচালনা কতটা গুরুত্বপূর্ণ তা নিশ্চই জানেন। আপনি যে খাবারগুলি খান সেগুলি আপনার থাইরয়েড স্বাস্থ্যের জন্য উপকারী বা ক্ষতিকারক কিনা এবং একটি থাইরয়েড রোগীর খাবারের তালিকা কী খেতে হবে এবং কী এড়াতে হবে তা সিদ্ধান্ত নিতে হবে।

এই নিবন্ধে, আমরা থাইরয়েড স্বাস্থ্যের জন্য পুষ্টির গুরুত্ব, আপনার কী ধরণের খাবার খাওয়া উচিত এবং আপনার কী খাবারগুলি এড়ানো উচিত তা অনুসন্ধান করব।

কি খেলে থাইরয়েড ভালো হয় - থাইরয়েড রোগীর খাবার তালিকা

কি খেলে থাইরয়েড ভালো হয়

থাইরয়েড আক্রান্ত ব্যক্তিদের জন্য বিভিন্ন ধরনের স্বাস্থ্যকর ও পুষ্টিসমৃদ্ধ খাবার খাওয়া গুরুত্বপূর্ণ। থাইরয়েডের কার্যকারিতা উন্নত করতে  পারে এমন খাবারের মধ্যে রয়েছে আয়োডিন সমৃদ্ধ খাবার যেমন বাদাম, ডিম, টমেটো, বেল মরিচ চিংড়ি মাছ এবং গাজর এবং মিষ্টি আলুর মতো খাবার যা একটি সুস্থ থাইরয়েডের জন্য অপরিহার্য।

থাইরয়েড রোগীর খাবার তালিকা

থাইরয়েড স্বাস্থ্যের জন্য যখন খাওয়ার কথা আসে তখন সর্বাধিক গুরুত্বপূর্ণ বিষয়টি হ’ল পুষ্টি সমৃদ্ধ এবং আপনার শরীরের পক্ষে হজম করা সহজ এমন খাবারগুলি গ্রহণের দিকে মনোনিবেশ করা। থাইরয়েড স্বাস্থ্যের জন্য দুর্দান্ত এমন খাবারের তালিকা।

ফল এবং শাকসবজি ভিটামিন, খনিজ এবং অ্যান্টিঅক্সিডেন্টগুলিতে ভরা থাকে যা সর্বোত্তম থাইরয়েড স্বাস্থ্য বজায় রাখার জন্য প্রয়োজনীয়। থাইরয়েড স্বাস্থ্যের জন্য কয়েকটি সেরা ফল এবং শাকসবজি মধ্যে রয়েছে:

  • কমলা
  • লেবুর
  • গাজর
  • মিষ্টি আলু
  • মটরশুটি
  • ডিম
  • মসুর ডাল
  • বাদাম
  • মাছ
  • চর্বিহীন মাংস
  • ছোলা

হাইপোথাইরয়েড রোগীর খাবার তালিকা

হাইপোথাইরয়েড রোগীর প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন, খনিজ এবং অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট যুক্ত পুষ্টি-ঘন খাবার খাওয়ার দিকে মনোনিবেশ করা উচিত। এর মধ্যে রয়েছে:

  • পুরো শস্য: ওটস, বার্লি, কুইনোয়া ইত্যাদি।
  • লেগুম: ছোলা, মসুর ডাল ইত্যাদি।
  • চর্বিহীন প্রোটিন: টার্কি, মাছ, ইত্যাদি।
  • ফল: আপেল, কমলা, কলা ইত্যাদি।
  • শাকসবজি: কলমি, পালং শাক, ব্রকলি ইত্যাদি।
  • স্বাস্থ্যকর চর্বি: জলপাই তেল, বাদাম, বীজ, ইত্যাদি।
  • দুগ্ধজাত: দই, পনির, দুধ, ইত্যাদি

চিনি, অস্বাস্থ্যকর চর্বি এবং প্রক্রিয়াজাত উপাদানের পরিমাণ বেশি থাকে এমন খাবার সীমিত করাও গুরুত্বপূর্ণ। হাইপোথাইরয়েড রোগীর প্রক্রিয়াজাত মাংস, ভাজা খাবার, গভীর ভাজা খাবার এবং প্রক্রিয়াজাত শর্করা এড়ানো বা সীমিত করা উচিত। উপরন্তু, ক্যাফিন এবং অ্যালকোহল গ্রহণের পাশাপাশি গ্লুটেন রয়েছে এমন খাবার সীমিত করা গুরুত্বপূর্ণ।

হাইপোথাইরয়েডিজম এর লক্ষণ

হাইপোথাইরয়েডিজমের লক্ষণগুলির মধ্যে রয়েছে ক্লান্তি, ওজন বৃদ্ধি, বিষণ্নতা, কোষ্ঠকাঠিন্য, শুষ্ক ত্বক, পাতলা চুল, দুর্বল স্মৃতিশক্তি এবং ঘনত্ব, ধীর হৃদস্পন্দন এবং ঠান্ডা তাপমাত্রা সহ্য করতে না পারা। আরও গুরুতর ক্ষেত্রে, থাইরয়েড গ্রন্থি (গয়টার) ফুলে যাওয়া এবং একটি বর্ধিত হৃৎপিণ্ড (কার্ডিওমায়োপ্যাথি) ঘটতে পারে।

হাইপোথাইরয়েডিজমের চিকিৎসায় সাধারণত একটি সিন্থেটিক থাইরয়েড হরমোন সাপ্লিমেন্টের দৈনিক ব্যবহার অন্তর্ভুক্ত থাকে। ডাক্তারের পরামর্শ অনুযায়ী এই ওষুধটি গ্রহণ করা এবং সর্বোত্তম থাইরয়েড হরমোনের মাত্রা নিশ্চিত করতে নিয়মিত অনুসরণ করা গুরুত্বপূর্ণ।

থাইরয়েড হলে কি কি ফল খাওয়া উচিত

থাইরয়েডের সমস্যায় আক্রান্ত ব্যক্তিদের জন্য নির্দিষ্ট ফল খাওয়া উপকারী হতে পারে। নাশপাতি, আপেল, কমলা, লেবু এবং আঙ্গুর ফল খাওয়ার জন্য সেরা কিছু ফল।

নাশপাতি ফাইবার সমৃদ্ধ এবং অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট ভিটামিনের একটি ভাল উৎস। আপেলে প্রচুর পরিমাণে ফাইবার থাকে এবং এর গ্লাইসেমিক ইনডেক্স কম থাকে, যা থাইরয়েডের সমস্যায় আক্রান্ত ব্যক্তিদের জন্য এটি একটি দুর্দান্ত পছন্দ করে তোলে।

কমলা ভিটামিন সি এর একটি বড় উৎস এবং এটি প্রদাহ কমাতে সাহায্য করতে পারে। লেবু ভিটামিন সি সমৃদ্ধ এবং প্রাকৃতিকভাবে শরীরের থাইরয়েড হরমোনের উৎপাদন বাড়াতে সাহায্য করতে পারে। অবশেষে, জাম্বুরা অ্যান্টিঅক্সিডেন্টে লোড হয় এবং প্রদাহ কমাতে সাহায্য করতে পারে।

এই সমস্ত ফল থাইরয়েড হরমোনগুলি নিয়ন্ত্রণ করতে সহায়তা করতে পারে। আপনার ডায়েটে এই ফলগুলি অন্তর্ভুক্ত করা আপনার সামগ্রিক স্বাস্থ্যের জন্য উপকারী হতে পারে।

থাইরয়েড পুষ্টির গুরুত্ব

থাইরয়েড হ’ল গ্রন্থি যা আপনার ঘাড়ের সামনের অংশে অবস্থিত যা থাইরয়েড হরমোন তৈরি করে। এই হরমোনগুলি আপনার বিপাক, হার্ট রেট এবং শরীরের তাপমাত্রা সহ আপনার শারীরিক ক্রিয়াকলাপগুলির অনেকগুলি নিয়ন্ত্রণ করে।

যখন আপনার থাইরয়েড সঠিকভাবে কাজ করছে, আপনি নিজের সেরাটি অনুভব করেন এবং আপনার সমস্ত শারীরিক ক্রিয়াকলাপগুলি তাদের যেমন করা উচিত তেমন কাজ করছে।

তবে, যদি আপনার থাইরয়েড সঠিকভাবে কাজ না করে তবে এটি ক্লান্তি, ওজন বৃদ্ধি, শুষ্ক ত্বক এবং চুল পড়া সহ অনেকগুলি লক্ষণ দেখা দিতে পারে। এজন্য আপনার থাইরয়েড স্বাস্থ্য বজায় রাখা এবং আপনি এটি সমর্থন করার জন্য সঠিক খাবার খাচ্ছেন তা নিশ্চিত করা এত গুরুত্বপূর্ণ।

থাইরয়েড হরমোন কমে গেলে কী হয়?

থাইরয়েড হরমোন কমে গেলে হাইপোথাইরয়েডিজম নামক অবস্থা হতে পারে। হাইপোথাইরয়েডিজম হল একটি সাধারণ থাইরয়েড ব্যাধি যা বিভিন্ন উপসর্গ এবং স্বাস্থ্য সমস্যার কারণ হতে পারে। এখানে থাইরয়েড হরমোন হ্রাসের কিছু প্রভাব রয়েছে:

  1. মেটাবলিজম ধীর হয়ে যায়: থাইরয়েড হরমোন বিপাক নিয়ন্ত্রণের জন্য গুরুত্বপূর্ণ, তাই যখন মাত্রা কমে যায়, তখন শরীরের বিপাকীয় হার ধীর হয়ে যেতে পারে। এটি ওজন বৃদ্ধি, ক্লান্তি এবং ঠান্ডা অসহিষ্ণুতা হতে পারে।
  2. কম শক্তি: কম থাইরয়েড হরমোন ক্লান্তি, দুর্বলতা এবং সাধারণ কম শক্তির কারণ হতে পারে।
  3. মেজাজ পরিবর্তন: হাইপোথাইরয়েডিজম মেজাজ পরিবর্তনের কারণ হতে পারে, যেমন হতাশা, উদ্বেগ এবং বিরক্তি।
  4. হৃদস্পন্দনের পরিবর্তন: থাইরয়েড হরমোনও হৃদস্পন্দন নিয়ন্ত্রণের জন্য গুরুত্বপূর্ণ। মাত্রা কমে গেলে, হৃদস্পন্দন ধীর হয়ে যেতে পারে, যার ফলে শ্বাসকষ্ট, বুকে ব্যথা এবং অনিয়মিত হৃদস্পন্দনের মতো লক্ষণ দেখা দেয়।
  5. হজমের সমস্যা: হাইপোথাইরয়েডিজমের কারণে কোষ্ঠকাঠিন্য, ফোলাভাব এবং অন্যান্য হজমের সমস্যা হতে পারে।
  6. মাসিক চক্রের পরিবর্তন: কম থাইরয়েড হরমোন ঋতুচক্রে পরিবর্তন ঘটাতে পারে, যার মধ্যে ভারী পিরিয়ড, দীর্ঘ চক্র, এমনকি পিরিয়ড মিস হয়ে যেতে পারে।
  7. শুষ্ক ত্বক এবং চুল: হাইপোথাইরয়েডিজম শুষ্ক ত্বক এবং চুলের পাশাপাশি চুলের ক্ষতি হতে পারে।

সামগ্রিকভাবে, হাইপোথাইরয়েডিজম বিভিন্ন উপসর্গ এবং স্বাস্থ্য সমস্যার কারণ হতে পারে। আপনি যদি সন্দেহ করেন যে আপনার হাইপোথাইরয়েডিজম আছে, তাহলে মূল্যায়ন ও চিকিৎসার জন্য একজন স্বাস্থ্যসেবা প্রদানকারীর সাথে দেখা করা গুরুত্বপূর্ণ।

থাইরয়েড এর মাত্রা কত?

রক্তে থাইরয়েড হরমোনের স্বাভাবিক মাত্রা সাধারণত স্বাভাবিক স্তর প্রতি লিটারে 0.4 থেকে 4.0 মিলিউনিটের মধ্যে হওয়া উচিত। যদি আপনার স্তরগুলি এই সীমার বাইরে থাকে তবে এটি থাইরয়েড ডিসঅর্ডারের লক্ষণ হতে পারে এবং আপনার ডাক্তারের সাথে কথা বলা উচিত।

সঠিক খাবার খেলে কি থাইরয়েড সমস্যা সমাধান হবে

সঠিক খাবার খাওয়া থাইরয়েড স্বাস্থ্যের উন্নতিতে উপকারী হতে পারে। আয়োডিন সমৃদ্ধ খাবার, যেমন সামুদ্রিক শৈবাল, স্বাস্থ্যকর থাইরয়েড ফাংশন বজায় রাখতে বিশেষভাবে গুরুত্বপূর্ণ।

অতিরিক্তভাবে, যেসব খাবারে অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট বেশি থাকে, যেমন বেরি এবং শাক-সবজি, প্রদাহ কমাতে সাহায্য করতে পারে, যা থাইরয়েডের স্বাস্থ্য পরিচালনার ক্ষেত্রেও উপকারী হতে পারে।

একটি মাল্টিভিটামিন এবং খনিজ সম্পূরক গ্রহণ কিছু ক্ষেত্রেও উপকারী হতে পারে। প্রক্রিয়াজাত ও পরিশোধিত খাবার এড়িয়ে চলাও গুরুত্বপূর্ণ, কারণ এগুলো থাইরয়েডের জন্য প্রয়োজনীয় পুষ্টি সরবরাহ করে না। পরিশেষে, ব্যায়ামের মাধ্যমে একটি স্বাস্থ্যকর জীবনধারা বজায় রাখা, চাপ কমানো এবং পর্যাপ্ত বিশ্রাম পাওয়া থাইরয়েড স্বাস্থ্যের উপর ইতিবাচক প্রভাব ফেলতে পারে।

উপসংহার

আজ আমরা জানলাম কি খেলে থাইরয়েড ভালো হয়? তাই ডায়েট আপনার থাইরয়েড স্বাস্থ্যের উপর বড় প্রভাব ফেলতে পারে। সঠিক খাবার খাওয়া আপনার থাইরয়েডকে সঠিকভাবে কার্যকর করতে সহায়তা করতে পারে, যখন ভুল খাবার খাওয়া আপনার লক্ষণগুলিকে আরও খারাপ করে তুলতে পারে। এজন্য আপনি কী খাচ্ছেন তা আপনাকে সঠিক সিদ্ধান্ত নিতে হবে। থাইরয়েড রোগীর খাদ্য তালিকা থাকা গুরুত্বপূর্ণ।

FAQs

থাইরয়েড জন্য সেরা খাবারগুলি কী কী? 

থাইরয়েড স্বাস্থ্যের জন্য সেরা খাবারগুলি হ’ল সেগুলি ভিটামিন, খনিজ এবং অ্যান্টিঅক্সিডেন্টগুলিতে সমৃদ্ধ, যেমন শাকযুক্ত শাক, ফল, শাকসবজি, প্রোটিন এবং স্বাস্থ্যকর চর্বি।

খাবার থেকে কি থাইরয়েডের জন্য পর্যাপ্ত পুষ্টি পাওয়া সম্ভব?

হ্যাঁ, খাবার থেকে থাইরয়েড স্বাস্থ্যের জন্য প্রয়োজনীয় সব পুষ্টি পাওয়া সম্ভব। বিভিন্ন ধরনের ফল ও শাকসবজি, কিছু দুগ্ধজাত ও দুগ্ধজাত খাবার, কিছু মটরশুটি, ডাল, মাছ, ডিম, মাংস এবং অন্যান্য প্রোটিন এবং প্রচুর পরিমাণে তরল সহ একটি সুষম খাদ্য খাওয়ার পরামর্শ দেওয়া হয়।

Leave a Comment