ই পাসপোর্ট করতে কি কি লাগে – ই পাসপোর্ট কি

Update:

[post-views]

ই পাসপোর্ট করতে কি কি লাগে- আপনি যদি বিদেশ ভ্রমণ করতে চান, আপনার সম্ভবত একটি পাসপোর্টের প্রয়োজন হবে। কিন্তু আপনি কি জানেন যে এখন ইলেকট্রনিক পাসপোর্ট (ই-পাসপোর্ট) পাওয়া যাচ্ছে? একটি ই-পাসপোর্ট হল একটি পাসপোর্টের একটি ইলেকট্রনিক সংস্করণ যা একটি ইলেকট্রনিক চিপ দিয়ে এম্বেড করা হয়। 

এই ব্লগ পোস্টে, আজ আলোচনা করব ই-পাসপোর্ট কী, একটি থাকার সুবিধাগুলি, একটি ই-পাসপোর্ট পাওয়ার যোগ্যতার প্রয়োজনীয়তা, একটি ই-পাসপোর্টের খরচ, একটি ই-পাসপোর্ট পেতে প্রয়োজনীয় কাগজপত্র, কীভাবে একটি ই-পাসপোর্টের জন্য আবেদন করতে এবং আরও অনেক কিছু।

ই পাসপোর্ট করতে কি কি লাগে - ই পাসপোর্ট কি

ই-পাসপোর্ট কি?

ই-পাসপোর্ট হল পাসপোর্টের একটি ইলেকট্রনিক সংস্করণ যাতে একটি ইলেকট্রনিক চিপ থাকে। এই চিপ বায়োমেট্রিক তথ্য সঞ্চয় করে, যেমন আপনার ছবি, স্বাক্ষর এবং অন্যান্য সনাক্তকারী তথ্য। চিপটিতে পাসপোর্টের ডেটা পৃষ্ঠার একটি ডিজিটাল চিত্রও রয়েছে এবং অননুমোদিত অ্যাক্সেস রোধ করতে এনকোড করা হয়েছে। পাসপোর্ট নম্বরটিও চিপে সংরক্ষিত থাকে।

ই-পাসপোর্টে একটি সুরক্ষা বৈশিষ্ট্যও রয়েছে যা আপনার অনুমতি ছাড়া চিপ পড়তে বাধা দেয়। এই সুরক্ষা বৈশিষ্ট্যটি বেসিক অ্যাক্সেস কন্ট্রোল (BAC) প্রোটোকল নামে পরিচিত। এই প্রোটোকলের প্রয়োজন হয় যে চিপটি আনলক করতে এবং এতে সঞ্চিত ডেটা অ্যাক্সেস করতে পাসপোর্ট ধারককে একটি পাসওয়ার্ড বা ব্যক্তিগত সনাক্তকরণ নম্বর (পিন) প্রদান করতে হবে।

ই পাসপোর্ট করতে কি কি লাগে 

ই-পাসপোর্টের আবেদনপত্র অনলাইনে পূরণ করা যাবে। অথবা পিডিএফে ফরমেটে ডাউলোড করেও ফরম পূরণ করা যাবে।

নতুন ই-পাসপোর্ট করতে হলে কিছু কাগজ সংশ্লিষ্ট পাসপোর্ট অফিসে জমা দিতে হয়। সেগুলো হলো-এনআইডি অথবা স্মার্ট কার্ডের ফটো কপি, পরিচয়পত্রের মূল কপি অধিদপ্তরের দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তাকে দেখাতে হবে। ১৮ বছরের কমবয়সীদের জন্য জন্ম-নিবন্ধন সার্টিফিকেট, বাবা-মায়ের ছবি ও এনআইডি’র কপি জমা দিতে হয়। 

  1. ই-পাসপোর্টের আবেদনপত্র এখন অনলাইনে পূরণ করা যায়।
  2. ই-পাসপোর্ট আবেদনের করার ক্ষেত্রে কোন প্রকার কাগজপত্র সত্যায়ন করার প্রয়োজন হবে না।
  3. ই-পাসপোর্ট ফরমে কোন ধরনের ছবি সংযোজন এবং তা সত্যায়নের প্রয়োজন নেই।
  4. পেশাগত সনদের ফটোকপি অথবা চাকুরীর আইডি কার্ড (পেশাজীবির যেমন ডাক্তার, ইঞ্জিনিয়ার, শিক্ষক, আইনজীবি)
  5. নাগরিক সনদ/ চেয়ারম্যান সার্টিফিকেট।
  6. জাতীয় ‍পরিচয়পত্র (NID) অথবা অনলাইন জন্মনিবন্ধন সনদ (বিআরসি ইংরেজি ভার্সন ) অনুযায়ী আপনাকে আবেদন পত্র পূরণ করতে হবে।
  7. অপ্রাপ্ত বয়স্ক যারা ১৮ বছরের কম আবেদনকারী যার জাতীয় পরিচয়পত্র বা (NID) নাই, তার পিতা অথবা মাতার জাতীয় পরিচয়পত্র বা (NID) নম্বর উল্লেখ করতে হবে।
  8. জাতীয় ‍পরিচয়পত্র বা (NID) অথবা অনলাইন জন্মনিবন্ধন সনদ (বিআরসি ইংরেজি ভার্সন) নিম্নোক্ত বয়স অনুসারে দাখিল করতে হবে-
  1. ১৮ বছরের নিম্নে হলে অনলাইন জন্মনিবন্ধন সনদ (বিআরসি ইংরেজি ভার্সন).
  2. ১৮-২০ বছর হলে জাতীয় ‍পরিচয়পত্র (NID) অথবা অনলাইন জন্মনিবন্ধন সনদ (বিআরসি ইংরেজি ভার্সন) 
  3. ২০ বছরের উর্ধে হলে জাতীয় ‍পরিচয়পত্র (NID) আবশ্যক । তবে বিদেশস্থ বাংলাদেশ মিশন হতে আবেদনের ক্ষেত্রে অনলাইন জন্মনিবন্ধন সনদ (বিআরসি ইংরেজি ভার্সন) গ্রহণযোগ্য হবে।

ই-পাসপোর্ট পোর্টালে বলা হয়েছে, সরকারি চাকরিজীবীদের জমা দিতে হবে অনাপত্তিপত্র-এনওসি এবং অবসরপ্রাপ্ত কর্মকর্তাগণ অবসরের প্রমাণপত্র হিসেবে পেনশন দলিল দেখানোর কথা বলা হয়েছে। এছাড়া প্রযোজ্য ক্ষেত্রে বিবাহ সনদ/ নিকাহনামা এবং বিচ্ছেদের ক্ষেত্রে তালাকনামা দাখিল করতে হবে।

ই-পাসপোর্ট আবেদনের নিয়ম

ই-পাসপোর্টের জন্য আবেদন করা একটি অপেক্ষাকৃত সহজ প্রক্রিয়া। প্রথমে আপনাকে প্রয়োজনীয় নথি সংগ্রহ করতে হবে এবং আবেদনপত্র পূরণ করতে হবে। একবার আপনি এটি সম্পন্ন করলে, আপনি যে শহরে বা জেলায় থাকেন সেই জেলা পাসপোর্ট অফিসে আপনার আবেদন এবং নথি জমা দিতে হবে।

ই পাসপোর্ট করার জন্য প্রথমে পাসপোর্ট ওয়েবসাইটে যান www.epassport.gov.bd এবং আপনার জাতীয় পরিচয়পত্র অথবা জন্ম নিবন্ধনের তথ্য অনুসারে অনলাইনে আবেদন করুন। অতপর আপনার আবেদনে ব্যক্তিগত তথ্য, ঠিকানা ও পিতা-মাতার তথ্য সঠিকভাবে লিখুন। আবেদন Submit করার পরে, আপনাকে ব্যাংকে গিয়ে পাসপোর্ট ফি পরিশোধ করতে হবে।শেষে প্রয়োজনীয় কাগজপত্র সহ আবেদনটি পাসপোর্ট অফিসে জমা দেন।

মনে রাখবেন, জাতীয় ‍পরিচয়পত্র অথবা অনলাইন জন্ম নিবন্ধন (বিআরসি ) সনদ অনুযায়ী, নাম, পিতা-মাতার নাম ও অন্যান্য তথ্য পূরণ করতে হবে।পাসপোর্ট আবেদন ফরম অনলাইনে পূরণের সময় অবশ্যই নিদের্শনাবলী মেনেই করতে হবে।

ই-পাসপোর্ট পেতে কত দিন সময় লাগে?

ই-পাসপোর্ট আবেদন প্রক্রিয়াকরণের সময় বিভিন্ন কারনে পরিবর্তিত হতে পারে। ই- পাসপোর্টের তিনটি ধরণ রয়েছে। অতি জরুরি ই-পাসপোর্ট, জরুরি ই-পাসপোর্ট ও সাধারণ ই-পাসপোর্ট। 5 বছর এবং 10 বছর মেয়াদি ই-পাসপোর্টের ফি ভিন্ন ভিন্ন হারে জমা দিতে হবে।

এটি আবেদন প্রক্রিয়া করতে সাধারণত চার সপ্তাহ সময় লাগে। আপনি অতি জরুরি ই-পাসপোর্ট অথবা জরুরি ই-পাসপোর্ট করে অল্প সময় করতে পারবেন। তবে তাতে খরছ একটু বেশি।

ই-পাসপোর্টের সুবিধা কি

একটি ই-পাসপোর্ট থাকার প্রাথমিক সুবিধা হল এটি আন্তর্জাতিক ভ্রমণকে আরও সহজ এবং নিরাপদ করে তোলে। পাসপোর্টে এম্বেড করা চিপ ডেটা সংরক্ষণ এবং অ্যাক্সেস করার একটি নিরাপদ উপায় প্রদান করে, যা অপরাধীদের পক্ষে পাসপোর্ট জাল বা পরিবর্তন করা আরও কঠিন করে তোলে। 

ই-পাসপোর্ট শুল্ক কর্মকর্তাদের জন্য ভ্রমণকারীর পরিচয় যাচাই করা সহজ করে তোলে। এটি একটি বিদেশী দেশে প্রবেশের প্রক্রিয়াটিকে দ্রুত এবং আরও নিরাপদ করে তুলতে পারে।

ই পাসপোর্ট করতে কত টাকা লাগে 2023

ই- পাসপোর্টের তিনটি ধরণ রয়েছে। অতি জরুরি, জরুরি ও সাধারণ। 5 বছর ও 10 বছর মেয়াদি ই-পাসপোর্টের জন্য ফিও ভিন্ন হারে জমা দিতে হবে।

5 বছর মেয়াদি 48 পৃষ্ঠার জরুরি পাসপোর্ট 7 দিনে পেতে ফি দিতে হবে 5,500 টাকা এবং সাধারণ পাসপোর্ট 15 দিনে পেতে ফি দিতে হবে 3,500 টাকা। ই-পাসপোর্ট 2 দিনে পেতে ফি দিতে হবে 7,500 টাকা।

10 বছর মেয়াদি 48 পৃষ্ঠার ই-পাসপোর্ট 15 দিনে পেতে ফি দিতে হবে 5,000 টাকা। জরুরি পাসপোর্ট 7 দিনে পেতে ফি দিতে হবে 7,000 টাকা এবং অতি জরুরি পাসপোর্ট 2 দিনে পেতে ফি দিতে হবে 9,000 টাকা। 

5 বছর মেয়াদি 64 পৃষ্ঠার ‘সাধারণ পাসপোর্ট’ 15 দিনে পেতে ফি দিতে হবে 5,500 টাকা। জরুরি পাসপোর্ট 7 দিনে পেতে ফি দিতে হবে 7,500 টাকা এবং অতি জরুরি পাসপোর্ট 2 দিনে পেতে ফি দিতে হবে 10,500 টাকা।

10 বছর মেয়াদি 64 পৃষ্ঠার সাধারণ পাসপোর্ট 15 দিনে পেতে ফি দিতে হবে 7,000 টাকা। 64 পাতার ‘জরুরি পাসপোর্ট’ 7 দিনে পেতে ফি দিতে হবে 9,000 টাকা। 64 পাতার অতি জরুরি পাসপোর্ট 2 দিনে পেতে ফি দিতে হবে 12,000 টাকা।

ই-পাসপোর্ট হারিয়ে গেলে বা চুরি হলে

আপনার ই-পাসপোর্ট হারিয়ে গেলে বা চুরি হয়ে গেলে, আপনি যে দেশে আছেন সেই দেশের প্রথমেই একটি সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করতে হবে। তারপরে আপনাকে একটি নতুন ই-পাসপোর্টের জন্য আবেদন করতে হবে, যার জন্য আপনাকে প্রথমবার আবেদন করার সময়ের একই নথি জমা দিতে হবে।

ই-পাসপোর্টের নিরাপত্তা বৈশিষ্ট্য

বেসিক অ্যাকসেস কন্ট্রোল (BAC) প্রোটোকল ছাড়াও, ই-পাসপোর্টের অন্যান্য নিরাপত্তা বৈশিষ্ট্য রয়েছে। চিপটি নিজেই একটি টেম্পার-প্রুফ কভার দ্বারা সুরক্ষিত থাকে যা ধারকের অনুমতি ছাড়া এটিকে অ্যাক্সেস করা থেকে বাধা দেয়। 

পাসপোর্টে একটি অনন্য শনাক্তকারীও রয়েছে যা পাসপোর্ট ট্র্যাক করতে এবং এর সত্যতা যাচাই করতে ব্যবহার করা যেতে পারে।

উপসংহার

ই-পাসপোর্ট আন্তর্জাতিকভাবে ভ্রমণ করার একটি নিরাপদ এবং সুবিধাজনক উপায়। আপনি যদি ই-পাসপোর্টের জন্য আবেদন করার কথা ভাবছেন, তাহলে ই-পাসপোর্টের আবেদন ও নবায়ন করার জন্য যোগ্যতার প্রয়োজনীয়তা, খরচ এবং প্রক্রিয়া নিয়ে আরো গবেষণা করা গুরুত্বপূর্ণ। এখন যেহেতু আপনি একটি ই-পাসপোর্ট পাওয়ার নিয়ম এবং খরচ জানেন, আপনি একটির জন্য আবেদন করার প্রক্রিয়া শুরু করতে পারেন এবং একটি ই-পাসপোর্ট থাকার অনেক সুবিধা উপভোগ করতে পারেন৷

FAQ

ই-পাসপোর্টের মেয়াদ কত দিন থাকে?

একটি ই-পাসপোর্টের বৈধতার সময়কাল এটি ইস্যু করা দেশের উপর নির্ভর করে পরিবর্তিত হয়, তবে এটি সাধারণত 5 থেকে 10 বছরের মধ্যে হয়।

ই-পাসপোর্ট হারিয়ে গেলে বা চুরি হয়ে গেলে কি করবেন?

আপনার ই-পাসপোর্ট হারিয়ে গেলে বা চুরি হয়ে গেলে, আপনি যে দেশে আছেন সেই দেশের পাসপোর্ট অফিসে অবিলম্বে রিপোর্ট করুন। তারপরে আপনাকে একটি নতুন ই-পাসপোর্টের জন্য আবেদন করতে হবে।

একটি ই-পাসপোর্ট, বায়োমেট্রিক পাসপোর্ট নামেও পরিচিত, একটি পাসপোর্ট যাতে একটি ইলেকট্রনিক চিপ থাকে যা পাসপোর্ট ধারকের ব্যক্তিগত তথ্য, তাদের নাম, ছবি এবং বায়োমেট্রিক ডেটা সহ সংরক্ষণ করে।

Leave a Comment