পিরিয়ড হলে কি খাওয়া উচিত – পিরিয়ড হলে কি খাওয়া উচিত না

Update:

[post-views]

ঋতুস্রাব একটি প্রাকৃতিক প্রক্রিয়া যা প্রতিটি মহিলার মধ্য হয়ে থাকে এবং এটি শরীরের উপর উল্লেখযোগ্য প্রভাব ফেলতে পারে। উপসর্গগুলি কমানোর এবং মাসিক চক্রকে সুস্থ রাখার অন্যতম উপায় হল খাদ্য। 

এই নিবন্ধে, আমরা আপনার মাসিকের সময় পিরিয়ড হলে কি খাওয়া উচিত এবং পিরিয়ড হলে কি খাওয়া উচিত না তা অন্বেষণ করব। তাহলে চলুন শুরু করা যাক।

পিরিয়ড হলে কি খাওয়া উচিত - পিরিয়ড হলে কি খাওয়া উচিত না

আপনার পিরিয়ডের সময় কী খাবেন এবং কী খাবেন না

যখন মাসিকের কথা আসে, তখন একজন মহিলার খাদ্য শরীরের উপর উল্লেখযোগ্য প্রভাব ফেলতে পারে। আপনার পিরিয়ডের সময় আপনি যে খাবার খান তা আপনার হরমোন নিয়ন্ত্রণ করতে, উপসর্গগুলিকে সহজ করতে এবং আপনার শক্তির মাত্রা বজায় রাখতে সাহায্য করতে পারে।

যাইহোক, ভুল খাবার খাওয়া জিনিসগুলি আরও খারাপ করতে পারে। আমরা আপনার পিরিয়ডের সময় খাওয়ার সেরা এবং সবচেয়ে খারাপ খাবারগুলি নিয়ে আলোচনা করব।

পিরিয়ডের সময় খাদ্যের গুরুত্ব

আপনার মাসিক চক্রে আপনার খাদ্য একটি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। আপনি যা খান তা আপনার হরমোনের ভারসাম্য, শক্তির মাত্রা এবং মাসিকের লক্ষণগুলির তীব্রতাকে প্রভাবিত করতে পারে।

একটি সুষম খাদ্য মাসিকের উপসর্গগুলি যেমন ক্র্যাম্প, ফোলাভাব এবং ক্লান্তি কমাতে সাহায্য করতে পারে।

পিরিয়ডের  সময়, মহিলারা হরমোনের পরিবর্তনগুলি অনুভব করে যা তাদের বিপাক এবং হজমকে প্রভাবিত করে। প্রচুর পরিমাণে ফল, শাকসবজি, গোটা শস্য, মাছ বা টফুর মতো চর্বিহীন প্রোটিন উত্স সহ একটি সুষম খাদ্য খাওয়া প্রদাহ কমাতে সাহায্য করতে পারে এবং আপনার পিরিয়ডের সময় আপনাকে আরও শক্তি বোধ করতে সাহায্য করতে পারে। 

পালং শাক বা লাল মাংসের মতো উচ্চ আয়রনযুক্ত খাবারগুলি ঋতুস্রাবের সময় খাওয়া বিশেষভাবে গুরুত্বপূর্ণ কারণ মাসিকের রক্তপাতের ফলে রক্তস্বল্পতা কিছু মহিলাদের জন্য রক্তস্বল্পতার কারণ হয়।

পিরিয়ড হলে কি খাওয়া উচিত?

আপনার পিরিয়ডের সময় একটি স্বাস্থ্যকর ডায়েটে নিম্নলিখিত পুষ্টিকর খাবারগুলি থাকা উচিত। শক্তি এবং হরমোনের ভারসাম্যের জন্য পুষ্টিকর খাবার হলো:

পানি

আপনার পিরিয়ডের সময় হাইড্রেটেড থাকা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। প্রচুর পরিমাণে পানি পান করলে ফোলাভাব এবং কোষ্ঠকাঠিন্য প্রতিরোধ করা যায়।

ফল এবং শাকসবজি

তাজা ফল এবং শাকসবজি প্রয়োজনীয় ভিটামিন এবং খনিজ সমৃদ্ধ যা আপনার শরীরের সঠিকভাবে কাজ করার জন্য প্রয়োজন। তারা প্রদাহ কমাতে এবং ক্র্যাম্প সহজ করতে সাহায্য করতে পারে।

গোটা শস্য

বাদামী চাল, কুইনোয়া এবং ওটমিলের মতো গোটা শস্য ফাইবারের চমৎকার উৎস যা অন্ত্রের গতিবিধি নিয়ন্ত্রণ করতে এবং কোষ্ঠকাঠিন্য প্রতিরোধ করতে সাহায্য করতে পারে।

চর্বিহীন প্রোটিন

মুরগি, মাছ এবং টফুর মতো চর্বিহীন প্রোটিন উত্সগুলি আয়রন এবং ভিটামিন বি 12 এর মতো প্রয়োজনীয় পুষ্টি সরবরাহ করতে পারে যা আপনার পিরিয়ডের সময় আপনার শরীরের প্রয়োজন।

স্বাস্থ্যকর চর্বি

অ্যাভোকাডো, বাদাম এবংকুমড়ার  বীজের মতো খাবারে স্বাস্থ্যকর চর্বি থাকে যা হরমোন নিয়ন্ত্রণ করতে এবং প্রদাহ কমাতে সাহায্য করতে পারে।

ফল 

ফল ফাইবার, ভিটামিন এবং খনিজ সমৃদ্ধ, যা মাসিকের লক্ষণগুলি কমাতে সাহায্য করতে পারে।

দুগ্ধজাত দ্রব্য

দুধ, পনির এবং দই-এর মতো দুগ্ধজাত দ্রব্যে প্রচুর পরিমাণে ক্যালসিয়াম থাকে, যা মাসিকের ব্যথা কমাতে সাহায্য করতে পারে।

মাসিকের লক্ষণগুলি সহজ করার জন্য নির্দিষ্ট খাবার

  • আয়রন সমৃদ্ধ খাবার: আয়রন সমৃদ্ধ খাবার যেমন পালং শাক, মসুর ডাল এবং লাল মাংস মাসিকের রক্তপাত এবং ক্লান্তি কমাতে সাহায্য করতে পারে।
  • ম্যাগনেসিয়াম-সমৃদ্ধ খাবার: ম্যাগনেসিয়াম-সমৃদ্ধ খাবার যেমন কলা, অ্যাভোকাডো এবং ডার্ক চকোলেট, ক্র্যাম্প কমাতে এবং মেজাজ উন্নত করতে সাহায্য করতে পারে।
  • ভিটামিন B6-সমৃদ্ধ খাবার: ভিটামিন B6-সমৃদ্ধ খাবার, যেমন মুরগি, টার্কি এবং ছোলা মেজাজের পরিবর্তন এবং বিরক্তি কমাতে সাহায্য করতে পারে।
  • আদা এবং হলুদ: আদা এবং হলুদে প্রদাহ-বিরোধী বৈশিষ্ট্য রয়েছে যা মাসিকের বাধা এবং ব্যথা কমাতে সাহায্য করতে পারে।
  • ক্যামোমাইল চা: ক্যামোমাইল চা উদ্বেগ এবং চাপ কমাতে সাহায্য করতে পারে, মাসিকের লক্ষণগুলিকে আরও খারাপ করে।

পিরিয়ড হলে কি খাওয়া উচিত না

আপনার পিরিয়ড চলাকালীন, আপনাকে নিম্নলিখিত খাবারগুলি এড়িয়ে চলতে হবে। মাসিকের লক্ষণগুলিকে আরও খারাপ করে এমন খাবার হলো:

প্রক্রিয়াজাত খাবার

প্রক্রিয়াজাত খাবার, যেমন চিপস, ক্যান্ডি এবং ফাস্ট ফুড, প্রদাহ বাড়িয়ে এবং হরমোনের ভারসাম্য ব্যাহত করে মাসিকের লক্ষণগুলিকে আরও খারাপ করতে পারে।

প্রক্রিয়াজাত খাবারে প্রায়ই সোডিয়াম এবং অস্বাস্থ্যকর চর্বি বেশি থাকে, যা ফোলাভাব এবং প্রদাহের দিকে পরিচালিত করে।

চিনি এবং মিষ্টি

উচ্চ পরিমাণে চিনি এবং মিষ্টি খাওয়ার ফলে রক্তে শর্করার মাত্রা হঠাৎ বেড়ে যেতে পারে, যা মেজাজ পরিবর্তন এবং ক্লান্তি সৃষ্টি করতে পারে।

চিনি রক্তে শর্করার স্পাইক এবং ক্র্যাশের কারণ হতে পারে, যার ফলে মেজাজ পরিবর্তন দেখা দেয়। এটি ক্র্যাম্প এবং প্রদাহকে আরও খারাপ করতে পারে।

নোনতা এবং মসলাযুক্ত খাবার

নোনতা এবং মসলাযুক্ত খাবার পানি ধরে রাখতে পারে এবং ফোলাভাব হতে পারে, মাসিকের লক্ষণগুলিকে আরও খারাপ করে দিতে পারে।

উচ্চ-চর্বিযুক্ত খাবার

ভাজা খাবার এবং চর্বিযুক্ত মাংসের মতো উচ্চ চর্বিযুক্ত খাবারগুলি প্রদাহ সৃষ্টি করতে পারে এবং হরমোনের ভারসাম্যকে আরও খারাপ করতে পারে।

পিরিয়ডের সময় টক খেলে কি হয়?

আপনার পিরিয়ডের সময় টক বা তেঁতুল খাওয়ার শরীরের উপর কোন নির্দিষ্ট প্রভাব আছে এমন কোন প্রমাণ নেই। যাইহোক, তেঁতুল অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট, ভিটামিন এবং খনিজগুলির একটি সমৃদ্ধ উত্স যা সামগ্রিক স্বাস্থ্যকে সহায়তা করতে পারে।

উপরন্তু, তেঁতুলের প্রাকৃতিক রেচক বৈশিষ্ট্য রয়েছে যা কোষ্ঠকাঠিন্যের মতো হজম সংক্রান্ত সমস্যা দূর করতে সাহায্য করতে পারে, যা মাসিকের সময় একটি সাধারণ উপসর্গ।

আরো পড়ুন: পিরিয়ডের লক্ষণ বনাম গর্ভাবস্থার লক্ষণ বোঝার উপায় ?

আরো পড়ুন: নরমাল ডেলিভারি হওয়ার উপায়

আসলে, কিছু গবেষণায় বলা হয়েছে যে তেঁতুল আসলে মাসিক স্বাস্থ্যের জন্য উপকারী হতে পারে। তেঁতুলে প্রচুর পরিমাণে অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট এবং অ্যান্টি-ইনফ্ল্যামেটরি যৌগ রয়েছে যা PMS-এর সাথে সম্পর্কিত উপসর্গ যেমন ফোলাভাব এবং মেজাজ পরিবর্তন করতে সাহায্য করতে পারে।

আপনার শরীরের কথা শোনা এবং আপনার পিরিয়ডের সময় নির্দিষ্ট কিছু খাবার আপনাকে কেমন অনুভব করে সেদিকে মনোযোগ দেওয়া সবসময় গুরুত্বপূর্ণ। 

পিরিয়ডের সময় লেবু খেলে কি হয়?

আপনার পিরিয়ডের সময় লেবু খাওয়া শরীরের উপর কোন নির্দিষ্ট প্রভাব ফেলে এমন কোন প্রমাণ নেই। যাইহোক, লেবু ভিটামিন সি-এর একটি সমৃদ্ধ উৎস, যা রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে এবং সামগ্রিক স্বাস্থ্যকে উন্নীত করতে সাহায্য করতে পারে।

লেবুতে ক্ষারীয় বৈশিষ্ট্য রয়েছে যা পাকস্থলীর অম্লীয় পরিবেশকে প্রতিরোধ করতে সাহায্য করতে পারে, যা ঋতুস্রাবের সময় সাধারণ ব্লাটিং এবং কোষ্ঠকাঠিন্যের মতো হজম সংক্রান্ত সমস্যাগুলি দূর করতে সাহায্য করতে পারে।

আপনার শরীরের কথা শোনা এবং আপনার পিরিয়ডের সময় নির্দিষ্ট কিছু খাবার আপনাকে কেমন অনুভব করে সেদিকে মনোযোগ দেওয়া সবসময় গুরুত্বপূর্ণ। যদি লেবু খাওয়ার ফলে কোনো অস্বস্তি বা নেতিবাচক উপসর্গ দেখা দেয়, তবে সেগুলি এড়িয়ে চলা বা স্বাস্থ্যসেবা প্রদানকারীর সাথে পরামর্শ করা ভাল।

পিরিয়ডের সময় কি চা খাওয়া যাবে?

হ্যাঁ, আপনার পিরিয়ডের সময় চা খাওয়া যেতে পারে এবং এটি মাসিকের উপসর্গ থেকে কিছুটা উপশমও দিতে পারে। যাইহোক, সঠিক ধরণের চা বেছে নেওয়া গুরুত্বপূর্ণ। ভেষজ চা, যেমন ক্যামোমাইল চা, চাপ এবং উদ্বেগ কমাতে সাহায্য করতে পারে, যা মাসিকের লক্ষণগুলিকে আরও খারাপ করতে পারে।

আদা চা প্রদাহ কমাতে এবং মাসিকের বাধা দূর করতেও সাহায্য করতে পারে। পেপারমিন্ট চা ফোলাভাব এবং বদহজম থেকে মুক্তি দিতে পারে। গ্রিন টি এবং ব্ল্যাক টি ক্যাফেইন ধারণ করে, যা ডিহাইড্রেশনের কারণ হতে পারে এবং মাসিকের লক্ষণগুলিকে আরও খারাপ করতে পারে।

আরো পড়ুন: Best 5 Office Chair for Pregnancy

আরো পড়ুন: Is Argan Oil Safe During Pregnancy?

অতএব, আপনার পিরিয়ডের সময় আপনার ক্যাফিনযুক্ত চা খাওয়া সীমিত করা এবং এর পরিবর্তে ভেষজ চা বেছে নেওয়া ভাল। হাইড্রেটেড থাকার জন্য এবং মাসিকের লক্ষণগুলি সহজ করার জন্য প্রচুর জল পান করাও অপরিহার্য।

পিরিয়ডের সময় আনারস খাওয়া যাবে কি?

হ্যাঁ, আপনার পিরিয়ডের সময় আনারস খাওয়া যেতে পারে। আনারস হল ভিটামিন, মিনারেল এবং এনজাইমের সমৃদ্ধ উৎস যা বিভিন্ন স্বাস্থ্য উপকারিতা প্রদান করতে পারে। এটিতে ব্রোমেলাইন রয়েছে, একটি এনজাইম যা প্রদাহ কমাতে এবং মাসিকের বাধা উপশম করতে সাহায্য করতে পারে।

আনারসে রয়েছে ভিটামিন সি, যা রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে এবং মানসিক চাপ কমাতে সাহায্য করে। আনারসের ফাইবার হজম নিয়ন্ত্রণ করতে এবং কোষ্ঠকাঠিন্য প্রতিরোধ করতে সাহায্য করে, যা মাসিকের সময় একটি সাধারণ সমস্যা হতে পারে।

যাইহোক, এটি লক্ষ করা গুরুত্বপূর্ণ যে প্রচুর পরিমাণে আনারস খাওয়ার ফলে এটির উচ্চ অম্লতার কারণে হজম সংক্রান্ত সমস্যা এবং মুখ ও গলাতে জ্বালা হতে পারে। অতএব, আপনার পিরিয়ডের সময় সংযম এবং অন্যান্য পুষ্টিকর খাবারের সাথে একত্রে আনারস খাওয়াই ভালো।

READ MORE All Health Tips  👉 Tune Status 👈

শেষ কথা

আপনার যদি পিরিয়ড হয়ে থকে তাহলে উপসর্গগুলি উপশম করতে এবং সামগ্রিক সুস্থতার উন্নতি করতে আপনার পিরিয়ডের সময় সঠিক পুষ্টি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। ফল ও শাকসবজি, গোটা শস্য, চর্বিহীন প্রোটিন এবং স্বাস্থ্যকর চর্বি জাতীয় খাবার খাওয়া প্রদাহ কমাতে এবং ক্র্যাম্প কমাতে সাহায্য করতে পারে।

FAQs

পিরিয়ডের সময় কি চা খাওয়া যাবে?

হ্যাঁ, আপনার পিরিয়ডের সময় চা খাওয়া যেতে পারে এবং এটি মাসিকের উপসর্গ থেকে কিছুটা উপশমও দিতে পারে। যাইহোক, সঠিক ধরণের চা বেছে নেওয়া গুরুত্বপূর্ণ। ভেষজ চা, যেমন ক্যামোমাইল চা, চাপ এবং উদ্বেগ কমাতে সাহায্য করতে পারে, যা মাসিকের লক্ষণগুলিকে আরও খারাপ করতে পারে।

আদা চা প্রদাহ কমাতে এবং মাসিকের বাধা দূর করতেও সাহায্য করতে পারে। পেপারমিন্ট চা ফোলাভাব এবং বদহজম থেকে মুক্তি দিতে পারে। 

পিরিয়ডের সময় টক খেলে কি হয়?

আপনার পিরিয়ডের সময় টক বা তেঁতুল খাওয়ার শরীরের উপর কোন নির্দিষ্ট প্রভাব আছে এমন কোন প্রমাণ নেই। যাইহোক, তেঁতুল অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট, ভিটামিন এবং খনিজগুলির একটি সমৃদ্ধ উত্স যা সামগ্রিক স্বাস্থ্যকে সহায়তা করতে পারে।

উপরন্তু, তেঁতুলের প্রাকৃতিক রেচক বৈশিষ্ট্য রয়েছে যা কোষ্ঠকাঠিন্যের মতো হজম সংক্রান্ত সমস্যা দূর করতে সাহায্য করতে পারে, যা মাসিকের সময় একটি সাধারণ উপসর্গ।

ব্যায়াম মাসিক লক্ষণ কমাতে সাহায্য করতে পারেন?

হ্যাঁ, ব্যায়াম মাসিকের লক্ষণ যেমন ক্র্যাম্প, ফোলাভাব এবং ক্লান্তি কমাতে সাহায্য করতে পারে। ব্যায়াম রক্ত ​​প্রবাহ উন্নত করতে পারে এবং এন্ডোরফিন মুক্ত করতে পারে, যা ব্যথা কমাতে এবং মেজাজ উন্নত করতে সাহায্য করতে পারে। 

তবে আপনার শরীরের কথা শোনা এবং আপনার পিরিয়ডের সময় নিজেকে অতিরিক্ত পরিশ্রম না করানো গুরুত্বপূর্ণ।

Hi, I'm SA Amin. I am a freelance health and fitness writer.

Leave a Comment