পিরিয়ড ১০ দিনের বেশি হলে করনীয় ?

Update:

[post-views]

পিরিয়ড একটি প্রাকৃতিক প্রক্রিয়া যা একজন মহিলার শরীরে প্রতি মাসে ঘটে এবং এটি সাধারণত প্রায় 3 থেকে 7 দিন স্থায়ী হয়। যাইহোক, কিছু মহিলাদের জন্য, তাদের পিরিয়ড স্বাভাবিকের চেয়ে বেশি সময় স্থায়ী হতে পারে, কখনও কখনও এমনকি 10 দিনেরও বেশি। 

আপনি যদি এমন একটি পিরিয়ডের সম্মুখীন হন যা 10 দিনের বেশি স্থায়ী হয় তবে এটি বেশ উদ্বেগজনক এবং অস্বস্তিকর হতে পারে। এই নিবন্ধে, আমরা আলোচনা করব যে আপনার মাসিক 10 দিনের বেশি হলে আপনি কী করতে পারেন।

পিরিয়ড ১০ দিনের বেশি হলে করনীয়

পিরিয়ড 10 দিনের বেশি হওয়ার কারণ কি

পিরিয়ড 10 দিনের বেশি কেন? এটি এমন একটি প্রশ্ন যা অনেক মহিলা প্রতি মাসে নিজেদেরকে জিজ্ঞাসা করে। যদিও কিছু মহিলারা অল্প এবং হালকা পিরিয়ডের জন্য যথেষ্ট ভাগ্যবান, অন্যরা দীর্ঘ এবং ভারী পিরিয়ড অনুভব করেন। কিন্তু এই দীর্ঘ সময়ের কারণ কী, এবং কখন আপনার উদ্বিগ্ন হওয়া উচিত?

একটি মহিলার মাসিক 10 দিনের বেশি স্থায়ী হতে পারে এমন কয়েকটি কারণ রয়েছে। সবচেয়ে সাধারণ কারণগুলির মধ্যে একটি হল হরমোনের ভারসাম্যহীনতা। যখন ইস্ট্রোজেন এবং প্রোজেস্টেরনের মতো হরমোনগুলি সঠিকভাবে ভারসাম্যপূর্ণ না হয়, তখন এটি অনিয়মিত পিরিয়ড বা স্বাভাবিকের চেয়ে বেশি সময় ধরে চলতে পারে।

দীর্ঘস্থায়ী পিরিয়ডের আরেকটি কারণ জরায়ুতে ফাইব্রয়েড বা পলিপের মতো অন্তর্নিহিত চিকিৎসার কারণে হতে পারে। এই বৃদ্ধির কারণে মাসিকের সময় প্রচুর রক্তপাত হতে পারে, যার ফলে দীর্ঘ সময়কাল হতে পারে। বিরল ক্ষেত্রে, কেমোথেরাপির মতো কিছু ওষুধ বা চিকিৎসাও দীর্ঘায়িত মাসিকের কারণ হতে পারে।

এন্ডোমেট্রিয়াল হাইপারপ্লাসিয়া এটি এমন একটি সমস্যা যেখানে জরায়ুর আস্তরণ খুব পুরু হয়ে যায়। এটি ভারী রক্তপাত এবং দীর্ঘস্থায়ী পিরিয়ডের পাশাপাশি অন্যান্য উপসর্গ যেমন পেলভিক ব্যথা এবং সহবাসের সময় অস্বস্তির কারণ হতে পারে।

আপনি যদি 10 দিনের বেশি সময়কালের সময়কাল অনুভব করেন তবে একজন স্বাস্থ্যসেবা ডাক্তারের সাথে পরামর্শ করা অপরিহার্য।

পিরিয়ড ১০ দিনের বেশি হলে করনীয়

যদি আপনার মাসিক দশ দিনের বেশি স্থায়ী হয়, তাহলে আপনার মাসিক চক্রের এই পরিবর্তনের দিকে মনোযোগ দেওয়া অপরিহার্য। মাসিকের সময়কাল সাধারণত 3-7 দিন পর্যন্ত স্থায়ী হয় এবং একটি ধারাবাহিক প্রবাহ প্যাটার্ন থাকে। 

যখন পিরিয়ড দশ দিনের বেশি হয়, তখন এটি সাধারণত একটি অন্তর্নিহিত স্বাস্থ্যের অবস্থা নির্দেশ করে যার জন্য চিকিৎসার প্রয়োজন হয়।

তবে এটি উদ্বেগের কারণ হতে পারে এবং চিকিৎসার প্রয়োজন হতে পারে। এখানে কিছু পদক্ষেপ আপনি নিতে পারেন:

ডাক্তারের সাথে পরামর্শ করুন

আপনার মাসিক 10 দিনের বেশি স্থায়ী হলে আপনার ডাক্তারের সাথে পরামর্শ করা ভাল। আপনার দীর্ঘস্থায়ী সময়ের কারণ নির্ধারণ করতে আপনার ডাক্তার একটি শারীরিক পরীক্ষা পরিচালনা করতে পারেন এবং কিছু পরীক্ষা চালাতে পারেন। 

হরমোনের ভারসাম্যহীনতা, জরায়ু ফাইব্রয়েড, এন্ডোমেট্রিওসিস, বা থাইরয়েড রোগ সহ আপনার পিরিয়ড স্বাভাবিকের চেয়ে দীর্ঘস্থায়ী হওয়ার অনেক কারণ থাকতে পারে। আপনার ডাক্তার অন্তর্নিহিত কারণের উপর ভিত্তি করে উপযুক্ত চিকিত্সার বিকল্পগুলি সুপারিশ করতে পারেন।

ভাল স্বাস্থ্যবিধি বজায় রাখুন

আপনার মাসিকের সময় ভাল স্বাস্থ্যবিধি বজায় রাখা অপরিহার্য, বিশেষ করে যদি এটি 10 দিনের বেশি স্থায়ী হয়। সংক্রমণ এবং গন্ধ রোধ করতে প্রতি 4 থেকে 6 ঘন্টা অন্তর আপনার স্যানিটারি প্যাড বা ট্যাম্পন পরিবর্তন করুন। 

আরো পড়ুন : পিরিয়ডের লক্ষণ বনাম গর্ভাবস্থার লক্ষণ বোঝার উপায় ?

আরো পড়ুন : পিরিয়ড হলে কি খাওয়া উচিত ?

আপনার যৌনাঙ্গ হালকা সাবান এবং জল দিয়ে ধুয়ে ফেলুন এবং সুগন্ধযুক্ত পণ্য বা ডাচিং ব্যবহার করা এড়িয়ে চলুন, যা আপনার যোনির প্রাকৃতিক pH ভারসাম্যকে ব্যাহত করতে পারে।

আপনার শরীরের যত্ন নিন

আপনার মাসিকের সময় আপনার শরীরের যত্ন নেওয়া গুরুত্বপূর্ণ, বিশেষ করে যদি এটি 10 দিনের বেশি স্থায়ী হয়। প্রচুর বিশ্রাম পান, হাইড্রেটেড থাকুন এবং পুষ্টি, ভিটামিন এবং খনিজ সমৃদ্ধ সুষম খাদ্য খান। ক্যাফেইন, অ্যালকোহল এবং মশলাদার খাবার এড়িয়ে চলুন, যা মাসিকের বাধাকে বাড়িয়ে তুলতে পারে এবং আপনার পাচনতন্ত্রকে বিরক্ত করতে পারে।

প্রাকৃতিক প্রতিকার চেষ্টা করুন

কিছু প্রাকৃতিক প্রতিকার মাসিকের ক্র্যাম্প উপশম করতে এবং আপনার মাসিক চক্রকে নিয়ন্ত্রণ করতে সাহায্য করতে পারে। এর মধ্যে রয়েছে আদা, ক্যামোমাইল এবং পেপারমিন্টের মতো ভেষজ চা পান করা, আপনার তলপেটে গরম করার প্যাড বা গরম জলের বোতল ব্যবহার করা এবং যোগব্যায়াম, ধ্যান বা গভীর শ্বাস-প্রশ্বাসের ব্যায়ামের মতো শিথিলকরণ কৌশলগুলি অনুশীলন করা।

হরমোনজনিত জন্ম নিয়ন্ত্রণ বিবেচনা করুন

হরমোনজনিত জন্মনিয়ন্ত্রণ পদ্ধতি যেমন জন্মনিয়ন্ত্রণ বড়ি, প্যাচ বা অন্তঃসত্ত্বা ডিভাইস (আইইউডি) আপনার মাসিক চক্রকে নিয়ন্ত্রণ করতে এবং আপনার পিরিয়ডের সময়কাল ও তীব্রতা কমাতে সাহায্য করতে পারে। 

যাইহোক, এই পদ্ধতিগুলি শুধুমাত্র আপনার ডাক্তারের নির্দেশনায় ব্যবহার করা উচিত এবং এর কিছু পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া থাকতে পারে।

আরো পড়ুন : আপনি কি জানেন পিরিয়ডের সময় টক খেলে কি হয় ?

আরো পড়ুন : জেনে নিন পিরিয়ডের সময় চা খেলে কি হয় ?

যদি আপনার পিরিয়ড 10 দিনের বেশি স্থায়ী হয়, তাহলে অন্তর্নিহিত কারণ নির্ধারণ করতে এবং উপযুক্ত চিকিত্সা গ্রহণ করতে আপনার ডাক্তারের সাথে পরামর্শ করা অপরিহার্য। 

এছাড়াও, ভাল স্বাস্থ্যবিধি বজায় রাখা, আপনার শরীরের যত্ন নেওয়া এবং প্রাকৃতিক প্রতিকার চেষ্টা করা আপনার লক্ষণগুলি পরিচালনা করতে এবং আপনার পিরিয়ডকে আরও আরামদায়ক করতে সহায়তা করতে পারে।

পিরিয়ডের ব্যথা কমানোর উপায়

পিরিয়ডের ব্যথা, যা ডিসমেনোরিয়া নামেও পরিচিত, এটি একটি সাধারণ উপসর্গ যা অনেক মহিলা তাদের মাসিক চক্রের সময় অনুভব করেন। 

এটি হালকা অস্বস্তি থেকে গুরুতর ব্যথা পর্যন্ত হতে পারে এবং দৈনন্দিন কাজকর্মে হস্তক্ষেপ করতে পারে। পিরিয়ডের ব্যথা কমানোর কিছু উপায় এখানে দেওয়া হল:

ওভার-দ্য-কাউন্টার ব্যথা উপশমের ওষুধ: ননস্টেরয়েডাল অ্যান্টি-ইনফ্ল্যামেটরি ড্রাগস (NSAIDs), যেমন আইবুপ্রোফেন এবং নেপ্রোক্সেন, কার্যকরভাবে প্রদাহ এবং প্রোস্টাগ্ল্যান্ডিন উত্পাদন হ্রাস করে পিরিয়ডের ব্যথা উপশম করতে পারে। সর্বদা প্রস্তাবিত ডোজ অনুসরণ করুন এবং আপনার ডাক্তারের সাথে পরামর্শ করুন ও চিকিৎসা শর্ত মেনে ওষুধ সেবন করুন।

হিট থেরাপি: তলপেটে তাপ প্রয়োগ করা পেশী শিথিল করতে এবং ক্র্যাম্পিং কমাতে সাহায্য করতে পারে। পিরিয়ডের ব্যথা কমাতে হিটিং প্যাড, গরম পানির বোতল ব্যবহার করুন বা উষ্ণ স্নান বা ঝরনা নিন।

খাদ্যতালিকা পরিবর্তন করুন: একটি স্বাস্থ্যকর এবং সুষম খাদ্য গ্রহণ করা প্রদাহ কমাতে এবং পিরিয়ডের সময় পেটে ব্যথা উপশম করতে সাহায্য করতে পারে। 

ওমেগা-৩ ফ্যাটি অ্যাসিড সমৃদ্ধ খাবার যেমন স্যামন, আখরোট এবং ফ্ল্যাক্সসিড যুক্ত করুন এবং ক্যাফেইন, অ্যালকোহল এবং প্রক্রিয়াজাত খাবার এড়িয়ে চলুন।

ব্যায়াম: হালকা থেকে মাঝারি শারীরিক ক্রিয়াকলাপে নিযুক্ত থাকা রক্ত ​​প্রবাহ বৃদ্ধি করে এবং শরীরের প্রাকৃতিক ব্যথানাশক এন্ডোরফিন মুক্ত করে পিরিয়ডের ব্যথা কমাতে সাহায্য করতে পারে। যোগব্যায়াম, হাঁটা, এবং সাঁতার সব ভাল বিকল্প।

খাদ্যতালিকাগত পরিবর্তন: একটি স্বাস্থ্যকর এবং সুষম খাদ্য গ্রহণ করা প্রদাহ কমাতে এবং পিরিয়ডের ব্যথা উপশম করতে সাহায্য করতে পারে। ওমেগা-৩ ফ্যাটি অ্যাসিড সমৃদ্ধ খাবার যেমন স্যামন, আখরোট এবং ফ্ল্যাক্সসিড যুক্ত করুন এবং ক্যাফেইন, অ্যালকোহল এবং প্রক্রিয়াজাত খাবার এড়িয়ে চলুন।

শিথিলকরণ কৌশল: স্ট্রেস পিরিয়ডের ব্যথা বাড়িয়ে তুলতে পারে, তাই গভীর শ্বাস, ধ্যান বা নির্দেশিত চিত্রের মতো শিথিলকরণ কৌশলগুলি অনুশীলন করা চাপ কমাতে এবং অস্বস্তি কমাতে সাহায্য করতে পারে।

পিরিয়ড হলে কি কি সমস্যা হয় ?

পিরিয়ডের সাথে যুক্ত সবচেয়ে সাধারণ সমস্যাগুলির মধ্যে একটি হল মাসিক ক্র্যাম্প। তলপেটে এই বেদনাদায়ক সংকোচনগুলি হালকা থেকে গুরুতর হতে পারে এবং কিছু মহিলাদের জন্য দুর্বল হতে পারে।

মাসিকের সময় অনেক মহিলার আরেকটি সমস্যা হল মেজাজের পরিবর্তন। এই সময়ে হরমোনের ওঠানামা কিছু ব্যক্তির মধ্যে বিরক্তি, উদ্বেগ এবং এমনকি হতাশার কারণ হতে পারে। 

অনেক মহিলাই তাদের পিরিয়ডের সময় পেটে ব্যথা, পিঠে ব্যথা, মাথাব্যথা এবং ফোলাভাব অনুভব করেন। এই উপসর্গগুলি হালকা থেকে গুরুতর হতে পারে এবং দৈনন্দিন কাজকর্মে হস্তক্ষেপ করতে পারে।

কিছু মহিলার মাসিকের সময় ভারী রক্তপাত হয়, যা প্রতি ঘণ্টায় ট্যাম্পন বা প্যাড দিয়ে কয়েক ঘন্টা ভিজিয়ে রাখা হিসাবে সংজ্ঞায়িত করা যেতে পারে। ভারী রক্তপাতের ফলে রক্তাল্পতা, ক্লান্তি এবং কম শক্তির মাত্রা হতে পারে।

উপরন্তু, কিছু মহিলাদের জন্য মাসিক চক্র অনিয়মিত হতে পারে, তাদের চারপাশে পরিকল্পনা করা কঠিন করে তোলে।

READ MORE All Health Tips  👉 Tune Status 👈

শেষ কথা

10 দিনের বেশি সময় স্থায়ী হওয়া উদ্বেগের কারণ হতে পারে, তবে এটি পরিচালনা করার জন্য আপনি কিছু করতে পারেন। আপনার ডাক্তারের সাথে পরামর্শ করুন, স্বাস্থ্যবিধি বজায় রাখুন, আপনার শরীরের যত্ন নিন, প্রাকৃতিক প্রতিকার চেষ্টা করুন। এই পদক্ষেপগুলি অনুসরণ করে, আপনি নিশ্চিত করতে পারেন যে আপনার সময়কাল পরিচালনা যোগ্য এবং আরামদায়ক হবে।

FAQs

পিরিয়ড 10 দিনের বেশি সময় স্থায়ী হওয়া কি স্বাভাবিক?

একটি সময়কাল যা 10 দিনের বেশি স্থায়ী হয় তা স্বাভাবিক হিসাবে বিবেচিত হয় না এবং এটি একটি অন্তর্নিহিত স্বাস্থ্যের অবস্থা নির্দেশ করতে পারে। আপনি যদি আপনার মাসিক চক্রের সাথে দীর্ঘস্থায়ী পিরিয়ড বা অন্য কোন সমস্যা অনুভব করেন তবে আপনার ডাক্তারের সাথে কথা বলা গুরুত্বপূর্ণ।

পিরিয়ড 10 দিনের বেশি স্থায়ী হওয়ার কিছু সাধারণ কারণ কী?

একটি সময়কাল যা 10 দিনের বেশি স্থায়ী হয় তা বিভিন্ন অন্তর্নিহিত স্বাস্থ্য অবস্থার কারণে হতে পারে। দীর্ঘস্থায়ী পিরিয়ডের কিছু সাধারণ কারণের মধ্যে রয়েছে হরমোনের ভারসাম্যহীনতা, জরায়ু ফাইব্রয়েড, এন্ডোমেট্রিওসিস, পেলভিক ইনফ্ল্যামেটরি ডিজিজ (পিআইডি), কিছু ওষুধ এবং ক্যান্সার।

স্বাভাবিক পিরিয়ড কতক্ষণ স্থায়ী হওয়া উচিত?

স্বাভাবিক পিরিয়ড সাধারণত 3 থেকে 7 দিনের মধ্যে স্থায়ী হয়, যদিও কিছু মহিলাদের পিরিয়ড হতে পারে যা 8 দিন পর্যন্ত স্থায়ী হয়। যদি আপনার মাসিক 10 দিনের বেশি স্থায়ী হয়, তাহলে অন্তর্নিহিত কারণ নির্ধারণ করতে আপনার ডাক্তারের সাথে কথা বলা গুরুত্বপূর্ণ।

পিরিয়ডের সাধারণ সমস্যা কি কি?

পিরিয়ডের সাথে সম্পর্কিত কিছু সাধারণ সমস্যাগুলির মধ্যে রয়েছে ব্যথা এবং অস্বস্তি, ভারী রক্তপাত, অনিয়মিত পিরিয়ড, প্রিমেনস্ট্রুয়াল সিনড্রোম (PMS), মাসিক মাইগ্রেন, এন্ডোমেট্রিওসিস এবং পলিসিস্টিক ওভারি সিন্ড্রোম (PCOS)।

Hi, I'm SA Amin. I am a freelance health and fitness writer.

Leave a Comment